করাঙ্গী নিউজ
স্বাগতম করাঙ্গী নিউজ নিউজপোর্টালে। ১৫ বছর ধরে সফলতার সাথে নিরপেক্ষ সংবাদ পরিবেশন করে আসছে করাঙ্গী নিউজ। দেশ বিদেশের সব খবর পেতে সাথে থাকুন আমাদের। বিজ্ঞাপন দেয়ার জন‌্য যোগাযোগ করুন ০১৮৫৫৫০৭২৩৪ নাম্বারে।

মৌলভীবাজারে সড়কের পাশে শোভা ছড়াচ্ছে সোনালু, ক্যাসিয়া, কৃষ্ণচূড়া ফুল

  • সংবাদ প্রকাশের সময়: বুধবার, ৮ মে, ২০২৪
মৌলভীবাজার প্রতিনিধি:
গ্রীষ্মের খর রোদে স্বস্তির সুবাতাস দিচ্ছে আর সব ক্লান্তি ছাপিয়ে আপন মহিমায় সৌন্দর্য-মুগ্ধতা ছড়াচ্ছে সোনালু, ক্যাসিয়া, কৃষ্ণচূড়া ফুল। গ্রীষ্মে এই ফুল মুগ্ধ করে প্রকৃতি প্রেমীদের। পাশাপাশি প্রশান্তির বার্তা বয়ে দিচ্ছে জনমনে।
মৌলভীবাজারের হাওর-বাঁওড়, নদ-নদীর পাড়, সড়ক ও শহরের আনাচকানাচ বেড়ে ওঠা গাছে গাছে ফুটেছে সোনালু, ক্যাসিয়া, কৃষ্ণচূড়া। এদিকে শ্রীমঙ্গল শহরের প্রবেশপথ ভানুগাছ-শ্রীমঙ্গল সড়কের বধ্যভূমি ৭১ থেকে চা গবেষণা ইনস্টিটিউট পয়েন্ট পর্যন্ত চা বাগানের সারি। কৃষ্ণচূড়া উছলে পড়া রূপ নজর কাড়ছে সবার।
শ্রীমঙ্গল শহরের খুব কাছে বধ্যভূমি ৭১ পেরুলেই চা-বাগান। ভাড়াউড়া চা বাগানের ফাঁড়ি বাগান ভুরভুরিয়া চা বাগানের মাঝ দিয়ে চলে গেছে আঁকা-বাঁকা পীচ ঢালা পথ। এটি শ্রীমঙ্গল-ভানুগাছ সড়ক।
বধ্যভূমি ৭১ থেকে চা গবেষণা ইনস্টিটিউট পয়েন্ট পর্যন্ত সড়কের দু’পাশে একের পর এক বিভিন্ন প্রজাতির বড় বড় ফুলের গাছ। দুর থেকে দেখা যায় হলুদ, সোনালী, লাল ফুলের অপরুপ দৃশ্য। সোনালু, ক্যাসিয়া জাভানিকা, কৃষ্ণচূড়াসহ আরো অনেক প্রজাতির ফুল গাছ। সারি সারি এসব গাছে লাল, হলুদ, সোনালী শোভায় মেলে ধরেছে তাদের সৌন্দর্য। এ পথে চলাচলকারী পথচারী, পর্যটক-দর্শনার্থী, প্রকৃতিপ্রেমীরা ফুলে ফুলে ভরা এসব দৃশ্য দেখে হন মুগ্ধ। কেউ কেউ ব্যস্ত হয়ে পড়েন ছবি তুলতে।
গাছে গাছে ফুটে থাকা রক্তলাল, হলুদ, সোনালীসহ হরেক প্রজাতির গাছের ফুলগুলো সৃষ্টি করেছে এক বৈচিত্র্যময় পরিবেশ। এ ফুলের গাছগুলো সমহিমায় উজ্জ্বল হয়ে নিজেকে মেলে ধরেছে প্রকৃতিতে। যেন লাল, হলুদ, গোলাপী, হলুদ আর সোনালী রঙে রাঙিয়েছে প্রকৃতি।
সবচেয়ে আকর্ষণীয় সোনালু আর কৃষ্ণচূড়ার গাছ। বিশেষ করে সোনালু দুর্দান্ত ফুলের গাছ। এটি তার আকর্ষণীয় সৌন্দর্যের জন্য বিখ্যাত। শোভাময় গাছ হিসেবে এর উজ্জ্বল হলুদ ফুল সড়ক, বাগান, পথগুলিকে শোভিত করে। সোনালু ফুল তার দীপ্তিময় বর্ন দিয়ে দর্শকদের মোহিত করে। প্রকৃতির এক অপরুপ সৃষ্টি সোনালু ফুলের সৌন্দর্য। প্রকৃতিকে নয়নাভিরাম রুপে সাজিয়ে তুলতে এর জুড়ি নেই।
স্থানীয়রা বলেন, প্রতি বছরই এই অংশটুকুতে সৌন্দর্য বিলায় কৃঞ্চচূড়া। পুরো এলাকা কৃষ্ণচূড়া ফুলের লাল রঙে রঙিন হয়ে যায়। প্রখর রোদে মনে হয় যেন প্রকৃতিতে আগুন লেগেছে। পড়ন্ত বিকেলে পূর্ব আকাশের রক্তিম আভায় কৃঞ্চচূড়া মিশে যেন একাকার হয়ে যায়। প্রতি বছর এই সময়ে নতুন রূপে সাজে। দূর-দূরান্ত থেকে দর্শনার্থীরা এখানে আসেন ছবি তুলতে।
পথচারীরা জানান, ফুলগুলো দেখলে মন প্রশান্তিতে ভরে যায়। গাছের ছায়া ও বাতাসে প্রাণটা জুড়িয়ে যায়। প্রখর রোদের মধ্যেও যেন এখানে একটু সবুজের শান্তি পাওয়া যায়।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ