• Youtube
  • English Version
  • সোমবার, ২২ জুলাই ২০২৪, ০৪:৩৩ পূর্বাহ্ন

করাঙ্গী নিউজ
স্বাগতম করাঙ্গী নিউজ নিউজপোর্টালে। ১৫ বছর ধরে সফলতার সাথে নিরপেক্ষ সংবাদ পরিবেশন করে আসছে করাঙ্গী নিউজ। দেশ বিদেশের সব খবর পেতে সাথে থাকুন আমাদের। বিজ্ঞাপন দেয়ার জন‌্য যোগাযোগ করুন ০১৮৫৫৫০৭২৩৪ নাম্বারে।

শায়েস্তাগঞ্জে কাউন্টারে ও অনলাইনে সক্রিয় রেল টিকিট কালোবাজারিরা

  • সংবাদ প্রকাশের সময়: শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল, ২০২৪

শাহ্ মোস্তফা কামাল: হবিগঞ্জের শায়েস্তাগঞ্জ রেলওয়ে স্টেশনের কাউন্টার ও অনলাইনে আন্তঃনগর ট্রেনের টিকিট পাওয়া দুষ্কর হয়ে দাঁড়িয়েছে। প্রতিদিন সকাল ৮টা থেকে কাউন্টার ও অনলাইনে একযোগে টিকিট বিক্রি শুরু হওয়ার মাত্র ৫ মিনিটের মধ্যেই সমুদয় টিকিট উধাও হয়ে যায়। ঢাকা-সিলেট, ঢাকা- চট্টগ্রাম উন্নয় পথের আন্তঃ নগর ট্রেনগুলোর টিকিটের এক-ই অবস্থা।

 

এরপরও কিছু টিকিট প্রত্যাশী নির্ধারিত সময়ে কাউন্টারে লাইনে দাঁড়িয়ে থাকলেও কাউন্টার থেকে পাওয়া যায় না আন্তঃনগর ট্রেনের টিকেট নামক সোনার হরিণ। একই অবস্থা অনলাইনেও। নির্ধারিত সময়ের আগে থেকে অবিরাম চেষ্টা করলেও অনলাইনে অ্যাপসের মাধ্যমে টিকিট পাওয়া সম্ভব হয় না। তবে কাউন্টার কিংবা অনলাইনে টিকিট পেতে ব্যর্থ হলেও রেলওয়ের কিছু অসাধু লোকজনের কাছে সব সময় আন্তঃনগর ট্রেনগুলোর টিকেট পাওয়া যায়। কাঙ্খিত টিকিটের দ্বিগুণ তিনগুণ দাম দিলে রেল কাউন্টারের সামনেই রেলওয়ের অসাধু কর্মচারীর হাতে পাওয়া যায় আন্তঃনগর ট্রেনের সব শ্রেণির টিকিট।

 

এমন কি শায়েস্তাগঞ্জ রেল স্টেশনে কাঙ্খিত গন্তব্যের টিকিট না পেলে, ওই ট্রেনের টিকিট পাওয়া যাবে শমসেরনগর, কুলাউড়া, ভানুগাছ, শ্রীমঙ্গল, মাইজগাঁও, সিলেট, শাহজীবাজার, নোয়াপাড়া, মনতলা, আজমপুর রেল স্টেশন থেকে। এগুলোর ব্যবস্থা করে অসাধু রেল কর্মচারী ও কালোবাজারী চক্রটি। ঢাকা ও চট্টগ্রাম রেলপথের আন্তঃনগর ট্রেনগুলোর টিকিট কালোবাজারীদের কাছে হামেশাই পাওয়া যায়। তবে কারা এসব আন্তঃনগর ট্রেনের টিকিট কালোবাজারে বিক্রি করছে তা জানেন না স্টেশনের ম্যানেজার।

 

দায়িত্বশীলদের এমন ‘অন্ধত্বের সুযোগে বেপরোয়া হয়ে উঠেছে ট্রেনের টিকিট কালোবাজারী চক্র।’ আন্তঃনগর টিকিট নিয়ে কোনো সমস্যা দেখা দিলে তাদের উপর মহলে ম্যানেজ থেকে শুরু করে সব সমস্যা সমাধান করে দেয় অসাধু চক্র। কিন্তু ঈদকে ঘিরে শায়েস্তাগঞ্জ সিলেটসহ বিভিন্ন জেলায় ট্রেনের টিকিটে সক্রিয় হয়ে উঠেছে কালোবাজারি চক্র। কাউন্টারে টিকিট না পেয়ে বাধ্য হয়ে কালোবাজারি চক্রের কাছে ধরণা দিচ্ছেন বাড়ি যাওয়া মানুষজন। এতে ভোগান্তিতে পড়েছেন সাধারণ যাত্রীরা। তবে পেয়েছে র‌্যাব-৯। র‌্যাবের এই চক্রকে ধরতে মাঠে নেমেছে আইনশৃঙ্খলা বাহীনির সদস্যরা।

 

সম্প্রতি র্যাাপিড অ্যকশন ব্যাটালিয়ন গত (র‌্যাব)-৯ এর হাতে গ্রেফতার হয়েছে চক্রের ৭ সদস্য। সিলেট বিভাগ ও ব্রাক্ষণবাড়িয়ার বিভিন্ন রেল স্টেশনে অভিযান চালিয়ে মেন কালোবাজারিদের সন্ধান পেয়েছে র‌্যা-৯। ১২৫ টি টিকেটসহ কালোবাজারি চক্রেকর ৭ সদস্য আটক করা হয়েছে। গেপ্তারকৃতরা হলেন: মোঃ আরিফ (৩২), সজল কান্তি চন্দ (৬০), আরিফুল ইসলাম (১৯), রাজিব কুমার দাস (৪৫), মোঃ স্বপন মিয়া (৪২), মোহাম্মদ সাগর (৩৫)। র‌্যাব -৯ এর অধনায়ক মোঃ মোমিনুল হক জানান, তথ্য ছিল অনলাইনে টিকেট বিক্রির সুযোগকে কাজে লাগিয়ে সিলেটে ও ব্রাক্ষণবাড়ীয়ায় বেশ কয়েকটি টিকেট কালোবাজারি চক্র সক্রিয় রয়েছে। তারা অনলাইনে ভিন্ন ভিন্ন জাতীয় পরিচয়পত্র (এন আইডি) কার্ড ও মুঠোফোন নম্বর ব্যবহার করে টিকেট ক্রয় করে চড়া দামে সাধারণ যাত্রীদের কাাছে বিক্রি করছে। সাধারণ জনগন অকেন সময়ই অধিক মূল্যে ট্রেনের টিকেট ক্রয় করতে বাধ্য হচ্ছেন। এ সকল তথ্যের ভিত্তিতে ট্রেনের কালোবাজারিদের গ্রেফতারে র‌্যাব-৯, সিলেট গোয়েন্দা তৎপরতা জোরদার করে। ‘

 

 

এরই ধারাবাহিকতায় প্রাপ্ত গোপন সংবাদের প্রাপ্ত গোপন সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব ৭ এপ্রিল রাত থেকে ০৮ এপ্রিল পর্যন্ত সিলেট বিভাগ এবং ব্রাক্ষণবাড়িয়া জেলার একাধিক রেলওয়ে ষ্টেশনে অভিযান পরিচালনা করে ১২৫ টি আসনের ট্রেনের টিকেটসহ কালোবাজারি চক্রের ৭ জন সদস্যকে গ্রেপ্তার করে।

 

শায়েস্তাগঞ্জ থেকে: ৩০ শে জানুয়ারী ২০২৪ দৈনিক মাবজমিন খবর প্রকাশিত হওয়ায়। দৈনিক মানবজমিনের প্রতিনিধিকে বিভিন্ন ধরনের হুমকি ধামকি দেওয়া হচ্ছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ