• Youtube
  • English Version
  • রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪, ০২:২৪ অপরাহ্ন

করাঙ্গী নিউজ
স্বাগতম করাঙ্গী নিউজ নিউজপোর্টালে। ১৫ বছর ধরে সফলতার সাথে নিরপেক্ষ সংবাদ পরিবেশন করে আসছে করাঙ্গী নিউজ। দেশ বিদেশের সব খবর পেতে সাথে থাকুন আমাদের। বিজ্ঞাপন দেয়ার জন‌্য যোগাযোগ করুন ০১৮৫৫৫০৭২৩৪ নাম্বারে।

অনেকে ভাতা পাইছইন-আমার  ভাতা দেও

  • সংবাদ প্রকাশের সময়: বুধবার, ৩ জানুয়ারী, ২০২৪

নবীগঞ্জের পল্লী এলাকার লালমতি বিবির আফসোস!

শাহ সুলতান আহমদ,নবীগঞ্জ থেকে:
আমার অনেক বয়স অইছে। আমার সাথের অনেক মানুষ সরকারের ভাতা পাইছইন। অনেকই ভাতা পাইয়া পাইয়া মরি গেছইন। আমি কি এই বাংলাদেশের নাগরিক নায়নি। আমাকে ভাতার টাকা দেও। বাক্কা দিন গেছে কম্পিউটারে দরখাস্ত করছি-ভাতার টাকা পাইনা কেন? আজ ভাতার টাকা না লইয়া বাড়িত যাইতামনায়।আঞ্চলিক ভাষায় মনের আফসোস ও আবেগ নিয়ে কথাগুলো বলেছেন সরকারের ভাতা থেকে  বঞ্চিত লালমতি বিবি ।

তিনি হলেন-হবিগঞ্জ জেলার নবীগঞ্জ উপজেলার দীঘলবাক ইউনিয়নের ৬ নং ওয়ার্ডের মশিবপুর গ্রামের মৃত মতুল মিয়ার স্ত্রী।

মঙ্গলবার বিকেল সাড়ে ৪টায় তিনি আসেন দীঘলবাক ইউনিয়নের কামারগাঁও বাজারস্থ স্থানীয় ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টারের উদ্যোক্তা মিসবাউর রহমানের কাছে। এসে তিনি তাকে এই ভাষায় বলেন-আমার অনেক বয়েস অইছে। আমার সাথের অনেক মানুষ সরকারের ভাতা পাইছইন। অনেকই ভাতা পাইয়া-পাইয়া মরি গেছইন। আমি কি এই বাংলাদেশের নাগরিক নায়নি। আমাকে ভাতার টাকা দেও* বাক্কা দিন গেছে কম্পিউটারে দরখাস্ত করছি-ভাতার টাকা পাইনা কেন। আজ ভাতার টাকা না লইয়া বাড়িত যাইতামনায়।

তাকে নিয়ে একান্ত আলাপকালে -তিনি বলেন- তার স্বামী মৃত্যুবরণ করার পর তিন ছেলে এবং এক মেয়েকে নিযে দুর্বিসহ জীবন-যাপন করেন। ছেলেরা বিয়ে করে পৃথক পৃথকভাবে পরিবার নিয়ে দিন কাটাচ্ছেন। একমাত্র মেয়ে বিধবা হয়ে পিত্রালয়ে এসে তার কাঁধে পড়েছে। প্রায় পনের শতাংশ ভূমির ভিটেবাড়িতে দুইকক্ষ বিশিষ্ট টিনের ঘরে তার মেয়ে নাতী-নাতনীকে নিয়ে দিন কাটাচ্ছেন।আত্মীয় -স্বজন ও এলাকার বিত্তশালী লোকজন মাঝে মধ্যে সহযোগীতা করলে ও নুন আনতে পান্তা ফুড়ায় তার।ওই গ্রামের একজন প্রবীণ মুরব্বি বলেন-লালমতি বিবি একজন অসহায় মহিলা। তিনি সরকারের বিধবা-বয়স্ক ভাতা পাওয়ার যোগ্য।

এব্যাপারে জানতে চাইলে দু,বারের স্থানীয় ইউপি সদস্য খালেদ হাসান দুলন বলেন-লালমতি বিবি একজন অসহায় মহিলা। কয়েক মাস পূর্বে ভাতার জন্য স্থানীয় ডিজিটাল সেন্টারে দায়িত্বপ্রাপ্ত উদ্যোক্তা মিসবাউর রহমানের মাধ্যমে বয়স্ক ভাতার আবেদন করিয়েছেন। তিনি ওয়েটিং তালিকায় আছেন। অপরদিকে ওই এলাকার সচেতন মহলের লোকজনদেন দাবি সরকারের যে কোন একটি ভাতায় যেনো অসহায় লালমতি বিবির নাম ভাতার অন্তর্ভূক্তি করা হয়।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ