1. nafiz.hridoy285@gmail.com : Hridoy Fx : Hridoy Fx
  2. miahraju135@gmail.com : MD Raju : MD Raju
  3. koranginews24@gmail.com : সম্পাদক : সম্পাদক
অভাবের তাড়নায় নবজাতককে রাস্তায় ফেল গেল বাবা-মা - করাঙ্গীনিউজ
  • Youtube
  • English Version
  • মঙ্গলবার, ২৪ নভেম্বর ২০২০, ০৫:৩৫ অপরাহ্ন

করাঙ্গী নিউজ
স্বাগতম করাঙ্গী নিউজ নিউজপোর্টালে। ১২ বছর ধরে সফলতার সাথে নিরপেক্ষ সংবাদ পরিবেশন করে আসছে করাঙ্গী নিউজ। দেশ বিদেশের সব খবর পেতে সাথে থাকুন আমাদের। বিজ্ঞাপন দেয়ার জন‌্য যোগাযোগ করুন ০১৮৫৫৫০৭২৩৪ নাম্বারে।

অভাবের তাড়নায় নবজাতককে রাস্তায় ফেল গেল বাবা-মা

  • সংবাদ প্রকাশের সময়: শুক্রবার, ২০ নভেম্বর, ২০২০

করাঙ্গীনিউজ: নারায়ণগঞ্জের বন্দর উপজেলায় সংসারে অভাবের কারণে রাস্তায় নবজাতককে ফেলে গেছেন এক বাবা-মা। পরে পথচারীরা তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে গেলেও বাঁচানো যায়নি তাকে।

শুক্রবার (২০ নভেম্বর) সন্ধ্যায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে ওই নবজাতকের মৃত্যু হয়। পুলিশ জানিয়েছে, শিশুটি আজকেই জন্মগ্রহণ করেছিল।

নবজাতকের বাবা লাল মিয়া ও মা রিক্তা বেগম বলে জানা গেছে। তারা উপজেলার ফরাজিকান্দা এলাকার আমানউল্ল্যাহ মিয়ার ভাড়াটিয়া বাড়িতে বসবাস করেন। লাল মিয়া আটার মিলে চাকরি করেন আর রিক্তা বেগম একজন পোশাক শ্রমিক।

পুলিশ জানায়, বন্দর উপজেলার ফরাজিকান্দা খালপাড় এলাকায় এক নবজাতককে শুক্রবার দুপুরে রাস্তায় পড়ে থাকতে দেখতে পান সজিব নামের এক পথচারী। তিনি নবজাতককে উদ্ধার করে বন্দর থানায় নিয়ে যান।

বন্দর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফখরুদ্দীন ভূঁইয়ার নির্দেশে পুলিশ ওই নবজাতককে প্রাথমিক চিকিৎসার জন্য বন্দর ছাঁয়া নূর হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসক শিশুটিকে ঢাকা মেডিকেল হাসপাতালে রেফার করলে সেখানে চিকিৎসারত অবস্থায় সন্ধ্যায় তার মৃত্যু হয়।

বন্দর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফখরুদ্দীন ভূঁইয়া জানান, নবজাতককে উদ্ধারের পর স্থানীয় একটি ক্লিনিকে চিকিৎসা দেয়া হয়। পরে ফরাজীকান্দায় অভিযান চালিয়ে নবজাতকের বাবা-মাকে খুঁজে বের করে পুলিশ। এরপর নবজাতককে তাদের কাছে দেয়া হয়। পরে নবজাতক খুব অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়। শুক্রবার সন্ধ্যায় সেখানে চিকিৎসারত অবস্থায় শিশুটি মারা যায়। এ ঘটনায় অবহেলাজনিত কারণে মৃত্যুর মামলা দেয়া হবে বলে জানান ওসি।

নবজাতকের বাবা লাল মিয়া জানান, তিনি একটি আটার মিলে স্বল্প বেতনে কাজ করেন। তার স্ত্রী একজন পোশাকশ্রমিক। অভাবের সংসারে বাচ্চার ভরণপোষণ সম্ভব নয় ভেবে তারা নবজাতককে খালের পাড়ে ফেলে যান। এখন বুঝতে পারছি নিজের সন্তানকে ফেলে দেয়া উচিত হয়নি।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ