Oops! It appears that you have disabled your Javascript. In order for you to see this page as it is meant to appear, we ask that you please re-enable your Javascript!
 #  স্টামফোর্ড ছাত্রী রুম্পার মৃত্যুর ঘটনায় ‘বয়ফ্রেন্ড’ আটক #  কমলগঞ্জে ইয়াবাসহ একজন আটক #  সাতছড়ি উদ্যানে পরিচ্ছন্নতা ও বৃক্ষরোপন অভিযান #  মাধবপুর পৌর আ’লীগের কমিটি গঠন #  মাধবপুরে মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলী পাঠানের মৃত্যুতে শোকসভা #  নেপালকে হারিয়ে ফাইনালে বাংলাদেশ #  বাহুবলের নিউ ভিশন কেজি এন্ড হাই স্কুলের উদ্বোধন ১০ ডিসেম্বর #  হবিগঞ্জ জেলা আ’লীগের সম্মেলন: ‘সিলেকশন না ইলেকশন’ #  রুম্পার কবরের সামনে বসে কাঁদছেন হবিগঞ্জের পুলিশ কর্মকর্তা বাবা! #  তাহিরপুর সীমান্তে জাল টাকাসহ যুবক আটক #  হবিগঞ্জ আ’লীগ সম্মেলন: এখনও হয়নি ভোটার তালিকা #  দালাল শাহীনের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ সৌদি আরব ফেরত হুসনার #  লাখাইয়ে বিষপানে অভিমানী বৃদ্ধার আত্নহত্যা #  সুনামগঞ্জ মুক্ত দিবসে বীর মুক্তিযোদ্ধাকে সম্মাণনা প্রদান #  হবিগঞ্জ মুক্ত দিবস উদযাপন

ভারপ্রাপ্তদের ঘাড়ে সিলেট বিএনপি!

নিজস্ব প্রতিনিধি, সিলেট: ২০১৬ সালের ৭ ফেব্রুয়ারি কাউন্সিলে সিলেট জেলা ও মহানগর বিএনপির সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক ও সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছিলেন সরাসরি ভোটে। এর এক বছর পর কেন্দ্র থেকে অনুমোদন পায় পূর্ণাঙ্গ কমিটি। ইতোমধ্যে দুই কমিটিই হয়ে পড়েছে মেয়াদোর্ত্তীণ। ‘হচ্ছে, হবে’ করে সময় গেলেও আলোর মুখ দেখছে না নতুন কমিটি। এর মধ্যে জেলা ও মহানগর শাখার নির্বাচিত শীর্ষ চার নেতার মধ্যে তিনজনই এখন অবস্থান করছেন দেশের বাইরে। ফলে ভারপ্রাপ্তদের উপর ভর করেই সিলেটে চলছে বিএনপি।

কাউন্সিলে সিলেট জেলা শাখার সভাপতি নির্বাচিত হন আবুল কাহের শামীম আর সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন আলী আহমদ। একইভাবে মহানগরের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন যথাক্রমে নাসিম হোসাইন ও বদরুজ্জামান সেলিম।
মহানগর শাখার সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হওয়ার পর থেকেই বেশিরভাগ সময় বিদেশে অবস্থান করছিলেন বদরুজ্জামান সেলিম। গত সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে বিদ্রোহী প্রার্থী হওয়ার পর দল থেকে বহিষ্কার করা হয় তাকে। এরপর ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পান সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আজমল বখত সাদেক। নির্বাচনের কয়েকদিন পর মৌখিকভাবে তার বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহার করা হয়। এরপর তিনি বিএনপির মেয়র প্রার্থী আরিফুল হক চৌধুরীকে সমর্থন দিয়ে চলে যান যুক্তরাজ্যে। যুক্তরাজ্যে অবস্থানকালেও আজমল বখত সাদেক ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন।

গত জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে কয়েকদিনের জন্য দেশে ফিরলেও নির্বাচনের পর আবারও যুক্তরাজ্যে চলে যান সেলিম। এরপর থেকে সাদেকই সাধারণ সম্পাদকের ভার বয়ে ফিরছিলেন। গত কয়েকদিন আগে ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক সাদেকও চলে যান দেশের বাইরে। নতুন করে ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পান দ্বিতীয় যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট শামীম সিদ্দিকী। এছাড়া গত কয়েক মাস আগে প্রায় এক মাসের সফরে বিদেশে ছিলেন মহানগর বিএনপির সভাপতি নাসিম হোসাইন।

এভাবে ভারপ্রাপ্তদের দিয়ে দল চালাতে বেশ বেগ পেতে হচ্ছে বলে জানান নাসিম হোসাইন। তিনি বলেন, নির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক স্থায়ীভাবে বিদেশে অবস্থান করায় দলীয় কর্মসূচি পালনও কষ্টসাধ্য হয়ে দাঁড়িয়েছে।

এদিকে, গত শনিবার সকালে জেলা শাখার সভাপতি আবুল কাহের শামীম হজ পালনের উদ্দেশ্যে সৌদি আরবে আর সাধারণ সম্পাদক আলী আহমদ গেছেন যুক্তরাজ্য সফরে। দু’জনই ফিরবেন প্রায় একমাস পর। ফলে গত শনিবার থেকে জেলা বিএনপিও চেপে বসেছে ভারপ্রাপ্তদের ঘাড়ে। ভারপ্রাপ্ত সভাপতির দায়িত্ব পেয়েছেন সিনিয়র সহসভাপতি আবদুল কাহির চৌধুরী আর ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক হয়েছেন সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক মাহবুবুর রব ফয়সল।

সিলেট জেলা ও মহানগর বিএনপির একাধিক নেতার সাথে আলাপ করে জানা গেছে, দলের মধ্যে সমন্বয়হীনতার কারণে একসাথে শীর্ষ নেতারা বিদেশ যাচ্ছেন। এতে সিলেটে নেতৃত্ব শূন্যতায় পড়ে দল। ফলে নেতাকর্মীদের মাঝেও অনেক সময় হতাশা দেখা দেয়। দলীয় কার্যক্রমেও স্থবিরতা দেখা দেয় বলে দাবি তাদের। বিডি প্রতিদিন।