Oops! It appears that you have disabled your Javascript. In order for you to see this page as it is meant to appear, we ask that you please re-enable your Javascript!
 #  শ্রীলঙ্কাকে হারিয়ে ক্রিকেটে বাংলাদেশের স্বর্ণ জয় #  কমলগঞ্জে জয়িতা সংবর্ধনা #  কমলগঞ্জে পিতা কর্তৃক মেয়েকে নির্যাতনের প্রতিবাদে মানববন্ধন #  বাহুবলে দুর্নীতি বিরোধী দিবস উদযাপন #  নবীগঞ্জে দুর্নীতিবিরোধী দিবস পালিত #  নবীগঞ্জে ৫ জয়িতাকে সম্মাননা #  বনিয়াচঙ্গে আন্তর্জাতিক দূর্নীতি প্রতিরোধ দিবস উদযাপন #  বাহুবলে সমবায় সমিতির ভ্রাম্যমান প্রশিক্ষণ সম্পন্ন #  স্বর্ণ জিতে কেঁদে ফেললেন সোমা #  যে কারণে চুনারুঘাটের শ্রেষ্ঠ বিদ্যোৎসাহী হলেন সনজু চৌধুরী #  শায়েস্তাগঞ্জে মোবাইল চার্জ দিতে গিয়ে স্কুল ছাত্রের মৃত্যু #  বড়লেখায় হাঁস খেতে গিয়ে ধরা পড়ল মেছোবাঘ #  জগন্নাথপুরে গাছের সঙ্গে মোটরসাইকেলের ধাক্কা, নিহত ২ #  কমলগঞ্জে ৫ মাস পর তরুণীর লাশ উত্তোলন #  সাফ গেমস এ বাংলাদেশকে পদক এনে দিল হবিগঞ্জের মোমিন

বাবরি মসজিদের নিচে হাজার খুঁড়েও মেলেনি মন্দিরের অস্তিত্ব

করাঙ্গীনিউজ ডেস্ক: অযোধ্যায় বাবরি মসজিদের নিচে ও পার্শ্ববর্তী এলাকায় হাজারবার খুঁড়েও কোনো মন্দিরের অস্তিত্ব খুঁজে

উনিশ শতকের মাঝামাঝি সময় থেকে ওই এলাকায় বেশ কয়েকবার খোঁড়াখুঁড়ি চালানো হয়েছে। কিন্তু কোনো প্রত্নতাত্ত্বিকই মন্দির পাননি।

এমনকি সর্বশেষ ভারতের প্রত্নতত্ব বিভাগ ‘দ্য আর্কিওলজিক্যাল সার্ভে অব ইন্ডিয়া’র (এআইএ) প্রত্নতাত্ত্বিক খননেও কোনো মন্দির মেলেনি। এএসআই’র চূড়ান্ত রিপোর্টেও কোনো মন্দির থাকার কথা উল্লেখ করা হয়নি।

সংস্থাটির দুই প্রত্নতাত্ত্বিকের মতে, মসজিদের নিচে প্রাচীন মসজিদের ধ্বংসাবশেষ ছিল। শুক্রবার দ্য ওয়ারের এক রিপোর্টে এসব তথ্য উঠে এসেছে।

রিপোর্টটি ২০১৮ সালের ডিসেম্বরে প্রথম প্রকাশ করা হয়েছিল। মসজিদ ধ্বংসের প্রায় ১০ বছর পর ২০০২ সালে এলাহাবাদ হাইকোর্ট আর্কিওলজিক্যাল সার্ভে অব ইন্ডিয়াকে অযোধ্যার বিধ্বস্ত বাবরি মসজিদের জমিতে খনন কাজ চালানোর নির্দেশ দেয়।

সেই নির্দেশ অনুযায়ী খোঁড়াখুঁড়ি শুরু করে প্রত্নতাত্ত্বিকদের একটি দল। ২০০৩ সালের আগস্টে ৫৭৪ পৃষ্ঠার একটি রিপোর্ট কোর্টে জমা দেয় এএসআই। রিপোর্টে সংস্থাটি দাবি করে, বিধ্বস্ত বাবরি মসজিদের নিচে মাটি খুঁড়ে তারা একটি ‘বিশালাকার কাঠামো’ খুঁজে পেয়েছে।

তবে সেটা যে কোনো মন্দিরের, এর পক্ষে কোনো প্রমাণ তারা তাদের রিপোর্টে বলেননি। এএসআই’র এই রিপোর্ট নিয়ে আপত্তি ওঠে দলের অন্যান্য প্রত্নতাত্ত্বিকদের মধ্য থেকেই।

রিপোর্টকে ‘অস্পষ্ট ও স্ববিরোধী’ নাকচ করে দেয় বাবরি মসজিদ মামলার বাদী সুন্নি ওয়াকফ বোর্ড। রিপোর্ট নিয়ে আপত্তি জানানো দুই প্রত্নতাত্ত্বিক হলেন সুপ্রিয়া ভার্মা ও জয়া মেনন। উভয়েই সুন্নি ওয়াকফ বোর্ডের পক্ষে এএসআই’র খননকার্যে অংশ নিয়েছিলেন।

এএসআই’র রিপোর্ট এবং এরপর এলাহাবাদ হাইকোর্টের রায়ের বিষয়ে আপত্তি জানিয়ে ২০১০ সালে ‘ইকোনমিক অ্যান্ড পলিটিক্যাল উইকলি’ শীর্ষক জার্নালে একটি প্রবন্ধ লেখেন এই দুই প্রত্নতাত্ত্বিক।

প্রবন্ধে তারা বলেন, ‘খননকালে এএসআই এমন পদ্ধতি ব্যবহার করেছে যাতে মনে হয়েছে এএসআইর অন্য সদস্যরা মনে মনে আগেই একটা ফলাফল তৈরি করে রেখেছিলেন।’

এএসআই’র রিপোর্ট নিয়ে কেন আপত্তি জানিয়েছিলেন সে বিষয়ে সম্প্রতি হাফিংটন পোস্টকে এক সাক্ষাৎকারে সবিস্তারে জানিয়েছেন জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ের পত্নতত্ত্ব বিভাগের অধ্যাপক সুপ্রিয়া ভার্মা।

তিনি বলেন, ‘আজ পর্যন্ত এমন কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি যে, বাবরি মসজিদের নিচে কোনো মন্দির ছিল।’ তার মতে, ‘মসজিদের নিচে আসলে পুরনো মসজিদের ধ্বংসাবশেষ ছিল।’