Oops! It appears that you have disabled your Javascript. In order for you to see this page as it is meant to appear, we ask that you please re-enable your Javascript!
 #  করোনায় মৃতের সংখ্যা ছাড়াল ৬৪ হাজার #  বাহুবলের ২২টি দোকানের ভাড়া মওকুফ করলেন মার্কেটের মালিক #  বানিয়াচংয়ে ৭ ব্যবসায়ীকে জরিমানা #  শ্রীমঙ্গলে করোনা সন্দেহে কিশোরীকে সিলেটে প্রেরণ, এলাকায় আতঙ্ক #  করোনা থেকে রক্ষা পেতে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার বিকল্প নেই #  বাহুবলে ত্রাণ বিতরণ করলেন এমপি মিলাদ গাজী #  জনশূণ্য নবীগঞ্জ #  বাহুবলে সেনাবাহিনীর গাড়ী উল্টে দুই সেনা সদস্য আহত #  হবিগঞ্জ এডভোকেট সমিতির নির্বাচনী তফশিল বাতিল #  মাধবপুরে প্রবাসীকে পিটিয়ে হত্যা #  চুনারুঘাটে কর্মহীনদের মাঝে খাদ্য দিলো ০৭০৯ গ্রুপ #  আরও ৯ করোনা রোগী শনাক্ত, ২ জনের মৃত্যু #  ঐতিহাসিক তেলিয়াপাড়া দিবস আজ #  হবিগঞ্জে কর্মহীনদের খাদ্য সামগ্রী দিলেন ভাইস চেয়ারম্যান #  দুই মাসের খাদ্যসামগ্রী পেলেন চুনারুঘাটের দিনমুজুর আঃ জলিল

‘নিসর্গসখা’ দ্বিজেন শর্মার মৃত্যুবার্ষিকী আজ

নিজস্ব প্রতিনিধি: জীববিজ্ঞানী, বিজ্ঞানলেখক, অনুবাদক ও নিসর্গবিদ দ্বিজেন শর্মার দ্বিতীয় মৃত্যুবার্ষিকী আজ। ২০১৭ সালের ১৫ সেপ্টেম্বর ভোর ৪টার দিকে রাজধানীর একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি।

প্রকৃতি ও গাছগাছালির প্রতি ভালোবাসা ও লেখালেখির কারণে দ্বিজেন শর্মাকে ‘নিসর্গসখা’ হিসেবে অভিহিত করা হয়। তার কাজের স্বীকৃতি হিসেবে তাকে বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার, রাষ্ট্রীয় একুশে পদকে ভূষিত করা হয়।

দ্বিজেন শর্মা ১৯২৯ সালের ২৯ মে সিলেট বিভাগের বড়লেখা থানার শিমুলিয়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। কলকাতা সিটি কলেজ থেকে স্নাতক ডিগ্রি অর্জনের পর তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে উদ্ভিদবিজ্ঞানে স্নাতকোত্তর করেন।

তিনি উদ্ভিদবিজ্ঞানের শিক্ষক হিসেবে চাকরি করেছেন করিমগঞ্জ কলেজ, বিএম কলেজ ও নটরডেম কলেজে। পরে মস্কোর প্রগতি প্রকাশনে চাকরি করেছেন প্রায় কুড়ি বছর। এরপর দেশে ফিরে যোগ দিয়েছেন বাংলাদেশ এশিয়াটিক সোসাইটিতে।

বামপন্থী রাজনীতির সমর্থক হওয়ার কারণে কিছুকাল আত্মগোপন, এমনকি কারাবাসও করতে হয়েছে দ্বিজেন শর্মাকে।

১৯৬০ সালে দেবী চক্রবর্তীর সঙ্গে দ্বিজেন শর্মার বিয়ে হয়। তাদের এক ছেলে সুমিত্র শর্মা আর এক মেয়ে শ্রেয়সী শর্মা।

দ্বিজেন শর্মা রাজধানীর অসংখ্য জায়গায় গাছ লাগিয়েছেন নিজ হাতে। তৈরি করেছেন উদ্যান ও বাগান। গাছের পরিচর্যা ও সংরক্ষণ এবং প্রকৃতিবান্ধব শহর গড়ার জন্য লড়াইও করেছেন।

প্রকৃতি ও নিসর্গবিষয়ক লেখালেখিরও পথিকৃৎ দ্বিজেন শর্মা। উদ্ভিদ ও প্রকৃতি নিয়ে লেখা তার আকরগ্রন্থ ‘শ্যামলী নিসর্গ’। গাছ, ফুল বা ফলের বর্ণনায় লিখেছেন ময়মনসিংহ গীতিকা, জীবনানন্দ দাশ, জসীমউদ্দীনের কাব্য থেকে শুরু করে সিলেটের লোকগীতি, কিংবা মধ্যযুগের কাব্যগাথার উদ্ধৃতি।

তার লেখা বইয়ের মধ্যে রয়েছে-‘সপুষ্পক উদ্ভিদের শ্রেণীবিন্যাস’, ‘ফুলগুলি যেন কথা’, ‘গাছের কথা ফুলের কথা’, ‘এমি নামের দুরন্ত মেয়েটি’, ‘নিসর্গ নির্মাণ ও নান্দনিক ভাবনা’, ‘সমাজতন্ত্রে বসবাস’, ‘জীবনের শেষ নেই’, ‘বিজ্ঞান ও শিক্ষা : দায়বদ্ধতার নিরিখ’, ‘ডারউইন ও প্রজাতির উৎপত্তি’, ‘বিগল যাত্রীর ভ্রমণ কথা’, ‘গহন কোন বনের ধারে’, ‘হিমালয়ের উদ্ভিদরাজ্যে ডালটন হুকার’, ‘বাংলার বৃক্ষ’ ইত্যাদি।