• Youtube
  • English Version
  • শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪, ১২:৪৫ পূর্বাহ্ন

করাঙ্গী নিউজ
স্বাগতম করাঙ্গী নিউজ নিউজপোর্টালে। ১৫ বছর ধরে সফলতার সাথে নিরপেক্ষ সংবাদ পরিবেশন করে আসছে করাঙ্গী নিউজ। দেশ বিদেশের সব খবর পেতে সাথে থাকুন আমাদের। বিজ্ঞাপন দেয়ার জন‌্য যোগাযোগ করুন ০১৮৫৫৫০৭২৩৪ নাম্বারে।

হাদিসের দৃষ্টিতে মানব জাতির মুক্তি

  • সংবাদ প্রকাশের সময়: মঙ্গলবার, ৩১ জানুয়ারী, ২০২৩

করাঙ্গীনিউজ:
“আল্লাহুম্মা ছল্লি ওয়াসাল্লিম ওয়া বারিক আলা সাইয়্যেদিনা মুহাম্মাদিন ওয়া আলা আলিহি ওয়া আসহাবিহি আজমাইন, ক্বালা রাসুলুল্লাহি সাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম, আছছিদকু ইউনজি ওয়াল কিজবু ইউহলিক। ”

এ হাদিসটি হজরত আবু হুরাইরা (রা.) বর্ণিত হাদিস। হজরত ইমাম বায়হাকি (রহ.) তার সুনানে কুবরার মধ্যে হাদিসখানা উল্লেখ করেছেন। এই হাদিসের মধ্যে হজরত রসুলে পাক (সা.) এই দিকনির্দেশনা করেছেন যে, কোন বস্তু মানুষকে নাজাত বা মুক্তি প্রদান করে, আর কোন বস্তু মানুষকে হালাক বা ধ্বংস করে দেয়।
মুক্তি বা নাজাতের চিন্তা করা এটা মানুষের স্বভাবগত বিষয়। যে তা না করে সে বোকা! হজরত রসুলে পাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের ইন্তেকালের পর একদিন হজরত ওমর (রা.) হজরত ওসমান গনি (রা.)-এর সামনে দিয়ে অতিক্রমকালে হজরত ওসমান গনি (রা.)-কে সালাম দিলেন। হজরত ওসমান গনি (রা.) সালামের জবাব দেননি। সালাম দেওয়া সুন্নত, আর সালামের জবাব দেওয়া ওয়াজিব।
আগে সালাম দিলে সওয়াব বেশি। জবাব দিলে সওয়াব কম। সালাম দিয়ে সুন্নত পালন করলে সওয়াব বেশি পাওয়া যায়। আর জবাব দিয়ে ওয়াজিব পালন করলে সওয়াব কম।
সুতরাং বোঝা গেল বড় কাজ করলেই বড় হওয়া যায় না। ছোট কাজ করেও বড়ত্ব অর্জন করা যায়। আসল কথা হলো মনের ব্যাপার।

যাই হোক সালামের জবাব না দেওয়া এটা একটা অপরাধ। তাই হজরত ওসমান (রা.) সালামের জবাব না দেওয়ার কারণে হজরত ওমর (রা.) হজরত আবু বকর (রা.)-এর কাছে অভিযোগ করলেন।
তখন খলিফা ছিলেন হজরত আবু বকর (রা.)। হজরত ওমর (রা.)-এর মতো ব্যক্তিত্ব খলিফার দরবারে বিচার নিয়ে গেছেন সালামের জবাব না দেওয়ার অভিযোগে। আজকে যদি কোনো ব্যক্তি এ ধরনের অভিযোগ নিয়ে কোনো অফিসের বস বা কর্মকর্তার কাছে যায় এবং বলে, স্যার আমি অমুককে সালাম দিয়েছি, সে সালামের জবাব দেয়নি। তাহলে তাকে পাগল ছাড়া কিছু বলবে?
বলবে, মিয়া! অভিযোগ করার আর কোনো বিষয় পেলে না? আর যদি কেউ প্রেসিডেন্টের কাছে যায় এই অভিযোগ নিয়ে, তাহলে? যাই হোক আমিরুল মুমিনিন হজরত আবু বকর (রা.) হজরত ওসমানের বিরুদ্ধে এই অভিযোগ শুনে চিন্তা করলেন, তিনি তো এমন লোক নন। যার কাছে নবী করিম (সা.) স্বীয় দুই কন্যাকে বিয়ে দিয়েছেন এবং এও বলেছেন, যদি আমার একশত মেয়ে থাকত, আর একেক জন মারা যেত, তাহলে একে একে সবাইকে আমি ওসমানের কাছে বিয়ে দিতাম। তা ছাড়া নবী করিম (সা.) বলে গেছেন, আল্লাহতায়ালা আমাকে জানিয়েছেন ওসমান (রা.) জান্নাতি। সুতরাং এমন ব্যক্তি সালামের জবাব থেকে বিরত থাকে কীভাবে? বিষয়টির কারণ ও রহস্য জানতে আমিরুল মুমিনিন স্বয়ং বের হয়ে হেঁটে হজরত ওসমান (রা.)-এর বাড়িতে গেলেন। গিয়ে সালাম দিলেন।

আজকাল তো মানুষ এমনভাবে সালাম দেয় যে, সালামের যা অর্থ ছিল, তা পরিবর্তন হয়ে সম্পূর্ণ বিপরীত অর্থ চলে আসে। বলে ‘সামালেকুম’ অর্থাৎ আপনি মরে যান। জবাবে বলে ওয়ালাইকুম, অর্থাৎ আপনিও মরে যান। সুতরাং হজরত আবু বকর (রা.) সালাম দিলেন ‘আসসালামু আলাইকুম ওয়া রাহমাতুল্লাহ। হজরত ওসমান (রা.) বললেন, “ওয়া আলাইকুমুস সালাম ওয়া রাহমাতুল্লাহ। ”

হজরত আবু বকর (রা.) হজরত ওসমান (রা.)-কে জিজ্ঞেস করলেন, হজরত ওমর আপনাকে সালাম দিয়েছিলেন, আপনি তার সালামের জবাব দেননি কেন? হজরত ওসমান (রা.) বললেন, বলেন কী? হজরত ওমর (রা.) সালাম দেবেন আর সালামের জবাব দেব না-এটা কী করে সম্ভব? তিনি কখন সালাম দিয়েছেন তা তো আমি কিছুই বলতে পারছি না। হজরত আবু বকর (রা.) ফিরে এলেন। বললেন, আসল ঘটনা আমি বুঝতে পেরেছি। আসল ঘটনা হলো, নবী করিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর ওফাতের ফলে ওসমানের অবস্থা এমন হয়েছে যে, তার সামনে দিয়ে কে যায় কে আসে এবং কে সালাম দেয় আর কে কী বলে এসবের ব্যাপারে তার কোনো অনুভূতিই নেই। এ প্রসঙ্গে হজরত ওসমান (রা.) স্বয়ং বলেন, আমাকে ক্ষমা করবেন! নবী করিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর ইন্তেকালের ফলে আমি খুবই চিন্তিত ছিলাম। কারণ আমি নবী করিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে একটি প্রশ্ন করতে চেয়েছিলাম মৃত্যুর পূর্ব মুহূর্তে, কিন্তু সেটা সম্ভব হয়নি। তাই আমি খুবই পেরেশান ছিলাম। হজরত আবু বকর (রা.) বললেন, সেই প্রশ্নটা কী? হজরত ওসমান (রা.) বললেন, প্রশ্নটা হলো, রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর ইন্তেকালের পর জাতির মুক্তির কী ব্যবস্থা হবে?

যে যেমন তাঁর চিন্তা-ভাবনাও তেমন। তিনি নিজের ব্যাপারে চিন্তিত ছিলেন না। যেহেতু তিনি আগামী দিনে আমিরুল মুমিনিন হবেন, তাই চিন্তা-ভাবনাও ঠিক সে পর্যায়ের। যাই হোক হজরত আবু বকর সিদ্দিক (রা.) তা শুনে বললেন, আমি এই প্রশ্ন রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে করেছি এবং তিনি এর উত্তর দিয়ে গেছেন। হজরত আবু হুরাইরা (রা.) বলেন, আমিও রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে তা জিজ্ঞেস করেছি তিনি আমাকেও এর উত্তর দিয়ে গেছেন। হজরত মায়াজ (রা.) বলেন, আমাকেও রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর উত্তর দিয়ে গেছেন। হজরত আনাস (রা.) বলেন, আমাকেও রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর উত্তর প্রদান করে গেছেন। হজরত ওসমান (রা.) বললেন, আমি ধন্য হে আবু বকর (রা.) আপনিই খলিফা হওয়ার উপযুক্ত। নবী করিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের অবর্তমানে আপনি তাঁর স্থলাভিষিক্ত হওয়ার অধিক যোগ্য। হে আবু হুরাইরাহ তুমিও উপযুক্ত।

লেখক : আমির, আল হাইআতুল উলয়া ও বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়া বাংলাদেশ।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ