1. nafiz.hridoy285@gmail.com : Hridoy Fx : Hridoy Fx
  2. miahraju135@gmail.com : MD Raju : MD Raju
  3. koranginews24@gmail.com : সম্পাদক : সম্পাদক
অমর শিল্পের মহানায়কের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী আজ - করাঙ্গীনিউজ
  • Youtube
  • English Version
  • বৃহস্পতিবার, ০৫ অগাস্ট ২০২১, ০১:১৩ অপরাহ্ন

করাঙ্গী নিউজ
স্বাগতম করাঙ্গী নিউজ নিউজপোর্টালে। ১২ বছর ধরে সফলতার সাথে নিরপেক্ষ সংবাদ পরিবেশন করে আসছে করাঙ্গী নিউজ। দেশ বিদেশের সব খবর পেতে সাথে থাকুন আমাদের। বিজ্ঞাপন দেয়ার জন‌্য যোগাযোগ করুন ০১৮৫৫৫০৭২৩৪ নাম্বারে।

অমর শিল্পের মহানায়কের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

  • সংবাদ প্রকাশের সময়: মঙ্গলবার, ১৩ জুলাই, ২০২১

করাঙ্গীনিউজ: শিল্প খাতের সফল আইকন যমুনা গ্রুপের প্রয়াত চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরুল ইসলামের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী আজ। সবাইকে শোকের সাগরে ভাসিয়ে গত বছরের (২০২০) এই দিনে (১৩ জুলাই) চিরবিদায় নেন আপসহীন এই যোদ্ধা। করোনার সঙ্গে প্রায় এক মাসের যুদ্ধে শেষ পর্যন্ত হার মানেন সাহসের এই বাতিঘর।

পরের দিন ১৪ জুলাই গভীর শোক, বিনম্র শ্রদ্ধা এবং হৃদয় নিংড়ানো ভালোবাসায় রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় (গার্ড অব অনার) রাজধানীর বনানী কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়। তার বয়স হয়েছিল ৭৪ বছর। অপ্রতিরোধ্য এই উদ্যোক্তার মৃত্যুতে দেশের সর্বস্তরে শোকের ছায়া নেমে এসেছিল। এই মুহূর্তে দেশের শিল্প খাতে তার শূন্যতা গভীরভাবে উপলব্ধি করছে দেশ।

শিল্প খাতের একটি প্রতিষ্ঠান, একটি বিপ্লবের নাম বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরুল ইসলাম। জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে রেখেছেন সফলতার স্বাক্ষর। একজীবনে দুই হাত ভরে দেশকে দিয়ে গেছেন ক্ষণজন্মা এই মানুষটি। যৌবনে অস্ত্র হাতে ১৯৭১ সালে দেশমাতৃকার মুক্তিসংগ্রামে ঝাঁপিয়ে পড়েন রণাঙ্গনের প্রথম সারির এই যোদ্ধা। আর স্বাধীনতার পর দেশের অর্থনৈতিক মুক্তির জন্য শুরু করেন নতুন যুদ্ধ।

এ যেন অবিরাম পথচলা। মেধা, সততা, পরিশ্রম ও সাহসিকতার সঙ্গে একে একে ৪২টি শিল্পপ্রতিষ্ঠান গড়ে তোলেন আপসহীন এই কর্মবীর। তার মালিকানাধীন যমুনা ফিউচার পার্ক এশিয়ার সবচেয়ে বড় শপিংমল। এছাড়াও যমুনা ইলেকট্রনিক্স, দৈনিক যুগান্তর ও যমুনা টেলিভিশনের মতো প্রতিষ্ঠান রয়েছে এই তালিকায়। সৃষ্টি করেছেন অর্ধলক্ষাধিক মানুষের কর্মসংস্থান।

দুর্নীতি ও অন্যায়ের বিরুদ্ধে বলিষ্ঠ এই কণ্ঠস্বর আজীবন, নির্দ্বিধায় কালোকে কালো ও সাদাকে সাদা বলে গেছেন। রক্তচক্ষুর ভয়ে নীতি থেকে কখনো একচুলও পিছপা হননি। দেশকে নিয়ে বিশাল স্বপ্ন ছিল তার। কিন্তু সেই স্বপ্ন পূরণের আগেই চিরনিদ্রায় শায়িত হন তিনি।

আর সাহসী কর্মই শিল্পের এই মহানায়ককে অমর করে রেখেছে। মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষ্যে রাজধানী ঢাকাসহ সারা দেশে যমুনা গ্রুপের প্রতিষ্ঠানগুলো স্বাস্থ্যবিধি মেনে সীমিত পরিসরে বিভিন্ন কর্মসূচি নিয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে বনানী কবরস্থানে প্রয়াত চেয়ারম্যান নুরুল ইসলামের কবর জিয়ারত, শ্রদ্ধা নিবেদন, স্মরণসভা, মিলাদ ও বিশেষ দোয়া মাহফিল।

গত বছরের ১৪ জুন নুরুল ইসলামের করোনা পজিটিভ ধরা পড়ে। ওইদিনই তাকে এভারকেয়ার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। করোনায় তার কিডনি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। বিশিষ্ট এই শিল্পোদ্যোক্তার চিকিৎসায় এভারকেয়ারে ১০ সদস্যবিশিষ্ট মেডিকেল বোর্ড গঠন করা হয়েছিল।

এর বাইরে চীনের চারজন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক এবং সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালের দুজন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক টেলিকনফারেন্সের মাধ্যমে পরামর্শ দিয়েছেন। কিন্তু মহান আল্লাহর ইচ্ছা ছিল অন্যরকম। সব চেষ্টা ব্যর্থ করে আল্লাহতায়ালার ডাকে সাড়া দিয়ে না-ফেরার দেশে পাড়ি জমান সংগ্রামী মানুষটি।

তিনি স্ত্রী, এক ছেলে, তিন মেয়েসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। তার স্ত্রী সাবেক মহিলা ও শিশুবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী বর্তমান জাতীয় সংসদের সদস্য (এমপি) অ্যাডভোকেট সালমা ইসলাম। ছেলে শামীম ইসলাম যমুনা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক। তিন মেয়ে-সারীয়াত তাসরিন সোনিয়া, মনিকা নাজনীন ইসলাম এবং সুমাইয়া রোজালিন ইসলাম যমুনা গ্রুপের পরিচালক।

জন্ম নিলে মৃত্যু নিশ্চিত-এটিই পৃথিবীর সবচেয়ে নির্মম সত্য। কিন্তু কিছু মানুষের মৃত্যু যেন একটি বিপ্লবকে থামিয়ে দেয়। ব্যক্তি যখন একটি ইনস্টিটিউশন হিসাবে প্রতিষ্ঠিত হয়, তখন তার মৃত্যু হাজারো মানুষের স্বপ্নকে করে দেয় ক্ষতবিক্ষত। তেমনই এক সিংহপুরুষ ছিলেন নুরুল ইসলাম।

দূরদৃষ্টিসম্পন্ন এই উদ্যোক্তার কাছে স্বপ্ন এসে ধরা দিত। তিনি স্বপ্নকে বাস্তবে রূপ দিতে পারতেন। তার মৃত্যুর মধ্য দিয়ে একটি বিপ্লব যেন থমকে দাঁড়িয়েছে। তবে তার রেখে যাওয়া যাবতীয় কাজ অত্যন্ত সুনিপুণভাবে এগিয়ে নিচ্ছেন পরিবারের সদস্যরা।

জন্ম ও পারিবারিক জীবন : নুরুল ইসলাম ১৯৪৬ সালের ৩ মে ঢাকার নবাবগঞ্জের চুড়াইন ইউনিয়নের কামালখোলা গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। বাবা আমজাদ হোসেন এবং মা জোমিলা খাতুন। বিশিষ্ট এই শিল্পপতি নুরুল ইসলাম যেমন দেশকে ভালোবাসতেন, তেমনই ভালোবাসতেন জন্মদাত্রী জননীকেও। স্রষ্টা তাকে মায়ের প্রতি সেই ভালোবাসার প্রতিদানও দিয়েছেন অকুণ্ঠ হস্তে। দেশের শিল্প খাতে মহিরুহ হিসাবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছেন।

কর্মজীবন : তিনি যে শিল্পই গড়ে তুলতে চেয়েছেন, সেখানেই সফল হয়েছেন। ছোটবেলা থেকেই অত্যন্ত দূরদর্শী ছিলেন। দেখতেন অনেক বড় স্বপ্ন। ব্যবসায়িক জীবনে অত্যন্ত সফল মানুষটি উদ্যোক্তা হয়ে মানুষের কর্মসংস্থান সৃষ্টির চিন্তা লালন করতেন। শিক্ষাজীবনে এসব স্বপ্নের কথা শেয়ার করতেন সহপাঠীদের সঙ্গে। তবে কর্মজীবনের শুরুতে যোগ দেন সেনাবাহিনীতে।

এর মধ্যেই শুরু হয় মুক্তিযুদ্ধ। দেশমাতৃকা রক্ষায় অস্ত্র হাতে ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েন। মুক্তিযুদ্ধ শেষে বঙ্গবন্ধু যখন সবাইকে দেশ গড়ার কাজে আত্মনিয়োগের আহ্বান জানালেন, সেই ডাকে সাড়া দিয়ে শুরু করেন ব্যবসা।

বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরুল ইসলাম মাতৃভূমির রাজনৈতিক স্বাধীনতা অর্জনের জন্য যেমন মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেছিলেন, তেমনই যুদ্ধোত্তর বাংলাদেশে দেশমাতৃকার অর্থনৈতিক মুক্তি অর্জনের জন্য গভীর দেশপ্রেম নিয়ে তিলে তিলে গড়ে তুলেছিলেন তার শিল্পপ্রতিষ্ঠানগুলো। শেষ বয়সে এসেও অক্লান্ত পরিশ্রম করতেন তিনি। সপ্তাহে ৭ দিন অফিস করতেন কাজপাগল এই মানুষটি।

শিল্প খাতে একটি বিপ্লবের নাম নুরুল ইসলাম : দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়ন এবং মানুষের কর্মসংস্থান তৈরিতে নুরুল ইসলাম একজন আধুনিক চিন্তার সাহসী উদ্যোক্তা। স্বাধীন বাংলাদেশের ব্যবসা-বাণিজ্য ও শিল্প খাতের আলোচিত ও উজ্জ্বল মুখ তিনি। ১৯৭৪ সালে প্রতিষ্ঠা করেন যমুনা গ্রুপ। এরপর সব বাধা উপেক্ষা করে এগিয়ে গেছেন শিল্প খাতের এই আপসহীন উদ্যোক্তা। এশিয়ার সর্ববৃহৎ শপিংমল যমুনা ফিউচার পার্ক, যমুনা ইলেকট্রনিক্স, যমুনা ডিস্টিলারি, বস্ত্র, ইলেকট্রনিক্স, ওভেন গার্মেন্টস, রাসায়নিক, চামড়া, বেভারেজ টয়লেট্রিজ, মোটরসাইকেল এবং আবাসন খাতের ব্যবসাসহ যেখানেই হাত দিয়েছেন, সেখানেই সফলতার স্বর্ণশিখরে পৌঁছেছেন কর্মবীর।

যমুনা গ্রুপে বর্তমানে অর্ধলক্ষাধিক মানুষ কাজ করছে। এই গ্রুপের প্রতিষ্ঠানগুলো শিল্প ও সেবা খাতে শীর্ষস্থান ধরে রেখেছে। অন্যান্য শিল্পের পাশাপাশি দেশের গণমাধ্যমেও তিনি বিশাল বিনিয়োগ করেছেন। দুই দশক আগে প্রতিষ্ঠা করেন পাঠকপ্রিয় দৈনিক যুগান্তর। এছাড়া বাংলাদেশে বিশ্বমানের একটি টিভি চ্যানেল তৈরি করা ছিল তার বিশাল এক স্বপ্ন।

তা বাস্তবায়নে ২০০৯ সালে প্রতিষ্ঠা করেন যমুনা টেলিভিশন। বিটিআরসির নির্দেশে পরীক্ষামূলক সম্প্রচার বন্ধ হলেও হার মানেননি এই উদ্যোক্তা। দীর্ঘ চার বছর আইনি লড়াই শেষে ২০১৪ সালে সর্বোচ্চ আদালতের রায়ে চালু হয় স্বপ্নের যমুনা টিভি। নিরপেক্ষ ও বস্তুনিষ্ঠ সংবাদের কারণে দ্রুততম সময়ে পাঠকের আস্থা অর্জনে সক্ষম হয় এ প্রতিষ্ঠান।

নুরুল ইসলাম মনেপ্রাণে বিশ্বাস করতেন বাংলাদেশ স্বাবলম্বী হবে, মাথা তুলে দাঁড়াবে। শুরু থেকেই তার আগ্রহের পুরোটাই ছিল মেড ইন বাংলাদেশ। তাই যমুনা ফ্যান, অ্যারোমেটিক সাবান এবং পেগাসাস কেডসের মতো জনপ্রিয় বাংলাদেশি ব্র্যান্ড তৈরি করেছেন তিনি। কেবল গার্মেন্টস বা ডেনিম নয়, উৎপাদনে নানা বৈচিত্র্য এনেছিলেন স্বপ্নবান এই মানুষটি।

গ্রামের মানুষের কাছে পৌঁছে দিয়েছেন ফ্রিজ, মোটরসাইকেলসহ নানা প্রয়োজনীয় সামগ্রী। পণ্যের মানের ব্যাপারে কখনো আপস করতেন না। সব সময় বলতেন, যে পণ্যই তিনি বানাবেন, সেটি হতে হবে নম্বর ওয়ান। গুণগত মানের কারণে যিনি একবার ব্যবহার করবেন, তিনি পণ্যের সুনাম ছড়াবেন।

পরিচ্ছন্ন ব্যবসায়ী : ব্যক্তিগত জীবনে নুরুল ইসলাম ছিলেন একজন পরিচ্ছন্ন ব্যবসায়ী। তার সব অর্থ, মেধা ও পরিশ্রম দেশেই বিনিয়োগ করেছেন। খেলাপি ঋণ এবং বিদেশে টাকা পাচারের বিরুদ্ধে সব সময় সোচ্চার ছিলেন তিনি।

মৃত্যুর আগ পর্যন্ত কোনো ব্যাংকে তার এক টাকাও খেলাপি ঋণ ছিল না। বিদেশে টাকা পাচারের কোনো অভিযোগ নেই তার বিরুদ্ধে। এ কারণে তার মালিকানাধীন দুটি গণমাধ্যম দৈনিক যুগান্তর ও যমুনা টিভি খেলাপি ঋণ ও টাকা পাচারের বিরুদ্ধে সবচেয়ে বেশি সংবাদ প্রচার করেছে।

অন্যায়ের বিরুদ্ধে সাহসী কণ্ঠস্বর : জীবনে কখনো অন্যায়ের সঙ্গে আপস করেননি। নির্দ্বিধায় কালোকে কালো ও সাদাকে সাদা বলেছেন। এজন্য তাকে মূল্যও দিতে হয়েছে। কিন্তু পিছপা হননি আপসহীন এই যোদ্ধা। নিশ্চিত ঝুঁকি জেনেও অন্যায়ের বিরুদ্ধে ছিলেন সোচ্চার।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ