1. nafiz.hridoy285@gmail.com : Hridoy Fx : Hridoy Fx
  2. miahraju135@gmail.com : MD Raju : MD Raju
  3. koranginews24@gmail.com : সম্পাদক : সম্পাদক
বাহুবলে আন্তঃজেলা ডাকাত দলের সদস্য গ্রেফতার - করাঙ্গীনিউজ
  • Youtube
  • English Version
  • সোমবার, ০৩ অক্টোবর ২০২২, ০৮:০৫ পূর্বাহ্ন

করাঙ্গী নিউজ
স্বাগতম করাঙ্গী নিউজ নিউজপোর্টালে। ১৩ বছর ধরে সফলতার সাথে নিরপেক্ষ সংবাদ পরিবেশন করে আসছে করাঙ্গী নিউজ। দেশ বিদেশের সব খবর পেতে সাথে থাকুন আমাদের। বিজ্ঞাপন দেয়ার জন‌্য যোগাযোগ করুন ০১৮৫৫৫০৭২৩৪ নাম্বারে।

বাহুবলে আন্তঃজেলা ডাকাত দলের সদস্য গ্রেফতার

  • সংবাদ প্রকাশের সময়: সোমবার, ১৬ জুলাই, ২০১৮

বাহুবল (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি: হবিগঞ্জের বাহুবলের মিরপুর দক্ষিণাঞ্চলের আন্তঃজেলা ডাকাত দলের সদস্য জামাল ওরপে রাজু (২৬)গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

 

রবিবার (১৫জুলাই) রাত ১টার দিকে বাহুবল  উপজেলার মিরপুর ইউনিয়নের দক্ষিণাঞ্চলের  ফদ্রখলা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। আটক জামাল ওরপে রাজু উপজেলার ফদ্রখলা  গ্রামের মতিন মিয়ার  ছেলে। জানা জায় জামাল একজন আন্তঃজেলা ডাকাত দলের সক্রিয় সদস্য।

 

তার বিরুদ্ধে হবিগঞ্জ সদর থানায় ডাকাতির মামলা রয়েছে। সে ২০১৫ সালের ডিসেম্বর মাসে  বৃহস্পতিবার দিনগত রাত আড়াই টার দিকে ওই গ্রামের মৃত হিরা মিয়ার পুত্র সৌদি প্রবাসী জাহির মিয়ার বাড়ীতে আড়াই টার দিকে জামালের নেতৃত্বে ১৫/২০ জনের একদল মুখোশধারী ডাকাত ঘরের পেছনের দরজা ভেঙ্গে লোকজনকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে বেঁধে  মারপিট করে লোকজনদের আহত করে এসময় জাহির উদ্দিনের মেয়ে আফিয়া খাতুন (২০) ও ছেলে ইসমাইল আহমদ (২২) আহত হয়। ডাকাতরা ঘরে থাকা মালামাল হাতিয়ে নেয়। ডাকাতের হামলাকালে বাড়ির লোকজন চিৎকার শুরু করে। তাদের চিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে আসলে ডাকাতরা পালিয়ে যাবার চেষ্টা করে।

 

এ সময় ডাকাতদের সাথে গ্রামবাসীর ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া হয়। এক পর্যায়ে দুই ডাকাতকে জনতা আটক করে গণধোলাই দেয়। অন্যান্যরা পালিয়ে যায়।

 

আটককৃত ডাকাত -সুনামগঞ্জ জেলার মধ্যনগর থানার বংশকুন্ডা গ্রামের মৃত হামিদ উদ্দিনের ছেলে বিলাল (৩০) ও অপর আটককৃত ডাকাত গণপিটুনিতে  ফদ্রখলা গ্রামের জামালের পাশের বাড়ীর জয়নাল  চিকিৎসাধিন অবস্থায় মারাযায়।  তখন জামাল পালিয়ে যাবার সময় তখনকার ওসি নাজিম উদ্দিনের নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে গ্রামের পার্শ্ববর্তী হাওর থেকে জামাল ওরপে রাজু আটক করে জেলে প্রেরণ করে। সে ৬মাস জেলে থাকারপর বের হয়ে দীর্ঘদিন যাবত  বিভিন্ন জেলায় ডাকাতি করে আসছে। তার বিরুদ্ধে  আরও বেশ ডাকাতির অভিযোগ রয়েছে। এলাকার মানুষ তার ভয়ে মুখ খুলতে সাহস পায়না।

 

সে গত ১২ জুলাই  তার পাশের গ্রাম কোটআন্দর   ব্যবসায়ী হেলাল মিয়া দীর্ঘদিন ধরে ঢাকায় কাপড়ের ব্যবসা করে আসছেন। বাড়িতে শুধু কয়েকজন মহিলা থাকেন। এ সুযোগে একদল মুখোশধারী ডাকাতদল ঘরের গ্রীল কেটে দরজা ভেঙ্গে ভেতরে প্রবেশ করে মহিলাদেরকে হাত পা বেধে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে ৫ ভরি স্বর্নালংকার মুল্যবান কাপড়চোপর নগদ ৩ হাজার টাকা ও ৪টি দামী মোবাইল সেটসহ ৫ লাখ টাকার মালামাল লুট করে নিয়ে যায়। এক পর্যায়ে স্থানীয় লোকজন তাদেরকে ধাওয়া করলে পালিয়ে যায়।

 

এঅভিযোগে তার নিজ এলাকা থেকে ডাকাতির অভিযোগে গ্রেফতার করে পুলিশ । সে শ্রীমঙ্গল, মাধবপুর, সুনামগঞ্জ বানিয়াচং ডাকাত দলের অন্যতম সরদার। তার গ্রেফতারে এলাকায় স্বস্তি ফিরে এসেছে। বাহুবল থানার ওসি মোঃ মাসুক আলী গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
x