1. nafiz.hridoy285@gmail.com : Hridoy Fx : Hridoy Fx
  2. miahraju135@gmail.com : MD Raju : MD Raju
  3. koranginews24@gmail.com : সম্পাদক : সম্পাদক
বিশ্বনাথে বেকায়দায় আওয়ামী লীগ-বিএনপি - করাঙ্গীনিউজ
করাঙ্গী নিউজ
স্বাগতম করাঙ্গী নিউজ নিউজপোর্টালে। ১৩ বছর ধরে সফলতার সাথে নিরপেক্ষ সংবাদ পরিবেশন করে আসছে করাঙ্গী নিউজ। দেশ বিদেশের সব খবর পেতে সাথে থাকুন আমাদের। বিজ্ঞাপন দেয়ার জন‌্য যোগাযোগ করুন ০১৮৫৫৫০৭২৩৪ নাম্বারে।

বিশ্বনাথে বেকায়দায় আওয়ামী লীগ-বিএনপি

  • সংবাদ প্রকাশের সময়: বুধবার, ৪ মে, ২০১৬

বিশ্বনাথ (সিলেট) প্রতিনিধি:
আগামী ৭ই মে বিশ্বনাথ উপজেলার ৬টি ইউনিয়নে নির্বাচন। নির্বাচনকে সামনে রেখে প্রার্থীরা গ্রাম থেকে গ্রামে ছুটে বেড়াচ্ছেন ভোটের জন্য। প্রথমবারের মতো দলীয় প্রতীকে স্থানীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলেও প্রধান দুই দল আওয়ামী লীগ ও বিএনপির অভ্যন্তরীণ কোন্দলের কারণে নির্বাচন উৎসবমুখর হয়ে ওঠেনি।

 

৬টি ইউনিয়নে রয়েছে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী এবং দুটিতে বিএনপির বিদ্রোহী। আর বিদ্রোহী প্রার্থী নিয়ে আওয়ামী লীগ-বিএনপি পড়েছে বিপাকে। উভয় দলের তৃণমূল পর্যায়ের নেতাকর্মীরা নাখোশ নির্বাচন নিয়ে।

 

ইতিমধ্যে উপজেলা প্রশাসন ও নির্বাচন অফিসের পক্ষ থেকে নির্বাচনকে শান্তিপূর্ণ ও উৎসবমুখর করতে সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে।

 

গত শনিবার সিলেটের জেলা প্র্রশাসকসহ প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা প্রার্থীদের সঙ্গে মতবিনিময় করে নির্বাচন সুষ্ঠু এবং নিরপেক্ষভাবে সম্পন্ন করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। তবে সাধারণ মানুষ ও বিএনপি, জামায়াত প্রার্থীদের মধ্যে সুষ্ঠু নির্বাচন নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে।

 

উপজেলার ৬টি ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জাতীয় পার্টি, বিদ্রোহী ও স্বতন্ত্র মিলে ২৭ জন চেয়ারম্যান প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। নির্বাচনের দিনক্ষণ যতই ঘনিয়ে আসছে আওয়ামী লীগ-বিএনপির দলীয় কোন্দল ততই তীব্র আকার ধারণ করছে। প্রতিপক্ষ রাজনৈতিক দলকে ঘায়েল করতে যতটা না কাজ করছেন, তার চেয়ে নিজ দলীয় প্রতিক্ষকে ঘায়েল করতে মরিয়া হয়ে উঠেছেন তারা।

 

এদিকে ৪টি ইউনিয়নে আনারস প্রতীকে নির্বাচন করছেন আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীরা। ইতিমধ্যে জেলা আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে তাদেরকে বহিষ্কারের কথা গণমাধ্যমে জানানো হয়েছে। বহিষ্কারাদেশের খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে দলীয় কর্মী-সমর্থক ও সাধারণ ভোটারদের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে।

 

অন্য দিকে চশমা প্রতীকে দুই ইউনিয়নে বিএনপির দুজন বিদ্রোহী প্রার্থী প্রতিদন্দ্বিতা করছেন। কোন্দল প্রকাশ্যে রূপ নিয়েছে। গত শুক্রবার থেকে ধারাবাহিকভাবে বিভিন্ন ইউনিয়নে দলীয় প্রার্থীর পক্ষে গণসংযোগ করছেন নিখোঁজ বিএনপি নেতা এম. ইলিয়াসপত্নী তাহসিনা রুশদির লুনা। অপরদিকে চারটিতে জাতীয় পার্টি ও তিনটিতে জামায়াত সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

 
সাধারণ ভোটারদের মতে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি উপজেলার অধিকাংশ ইউনিয়নেই শক্তিশালী এবং গ্রহণযোগ্য প্রার্থী দিতে পারেনি। ফলে দুই দলের অনেক দুর্বল প্রার্থী মনোনয়ন পাওয়ায় নির্বাচনী ফলাফল নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে। তাই নিজ দলের প্রার্থীদের বিজয় নিশ্চিত করতে প্রচারণার মাঠে নেমেছেন কেন্দ্রীয় ও জেলা নেতৃবৃন্দ।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
x