Daily Archives: August 2, 2020

আজমিরীগঞ্জে পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু

নিজস্ব প্রতিনিধি: হবিগঞ্জের আজমিরীগঞ্জে পানিতে ডুবে মরিয়ম নামের ৫ বছরের এক শিশুর মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে।

রোববার (২ আগস্ট) উপজেলার ৪ নং কাকাইলছেও ইউনিয়নের মাহমুদপুর গ্রামে এ ঘটনাটি ঘটে।

শিশু মরিয়ম ওই গ্রামের জাহাঙ্গীর মিয়ার মেয়ে।

স্থানীয় সূত্র জানায়, রোববার দুপুরে খেলতে গিয়ে বাড়ির পা‌শে জ‌মে থাকা বর্ষার পানিতে প‌ড়ে ডুবে যায় শিশু মরিয়ম। পরে পরিবারের লোকজন অনেক খোঁজাখুঁজি করে পা‌নি থে‌কে শিশু মরিয়মকে উদ্ধার করে স্থানীয় বাজারে চিকিৎসকের কাছে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মরিয়মকে মৃত ঘোষণা করেন। ঈদের দ্বিতীয় দিন মেয়েকে হা‌রি‌য়ে বাবা-মা শো‌কে বিহ্বল হ‌য়ে প‌ড়ে‌ছেন। মর্মান্তিক মৃত্যুতে এলাকায় শো‌কের ছায়া নেমে আসে।

আজমিরীগঞ্জ থানার ওসি (তদন্ত) আবু হানিফ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

চুনারুঘাটের চা বাগানগুলিতে পর্যটকদের ভীড়

চুনারুঘাট ( হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি: করোনার মধ্যেও পর্যটকে গিজ গিছ করছে হবিগঞ্জের চুনারুঘাটের চা বাগানসহ পর্যটক কেন্দ্রগুলোতে। অথচ উপজেলা সাতছড়ি জাতীয় উদ্যান ও রেমা কালেঙ্গা অভয়ারণ্য সরকারি আদেশে বন্ধ রয়েছে। এ অবস্থায়ই ঈদে বাড়িতে আসা মানুষজন ছুটছে চা বাগানসহ বিভিন্ন এলাকায়।
 আজ রবিবার বিকেলে উপজেলা চান্দপুর, চনিডছড়া চা বাগান ঘুরে দেখা যায়, চারদিকে ভ্রমনপিপাসু মানুষের ভীড়। চা বাগানের অলিগলি, বাগানের ছড়াগুলো কিংবা লেকের পাড়ে পাড়ে মানুষ ভীড় করছে।
উপজেলার সবচেয়ে বড় সাতছড়ি জাতীয় উদ্যান এবং রেমা কালেঙ্গা অভয়ারন্য করোনার কারণে বন্ধ প্রায় ৬ মাস ধরে। দীর্ঘদিন ধরে থাকা মানুষ এবার ঈদে বেরিয়ে পড়েছে। অনেকেই বন্ধ সাতছড়ি জাতীয় উদ্যানে ঘুরতে গেছেন। তারা পার্কে প্রবেশ করতে না পারলেও বাইরে ঘুরাঘুরি করছেন। পার্কের চারপাশেই ভ্রমন পিপাসুদের ভীড় দেখা গেছে।
এদিকে উপজেলার ২৪টি চা বাগানে এখন ভ্রমনপিপাসুদের ভীড় পড়েছে। চান্দপুর, চন্ডিছড়া, চাকলাপুঞ্জি, দেউন্দি, লালচান্দ. লস্করপুর, আমু, নালুয়া চা বাগানে শুধু মানুষ আর মানুষ। সবাই এসেছেন ঘুরতে। ঈদের ছুটির দিনে বেড়াতে।
বিশেষ করে চান্দপুর ও চন্ডিছড়া চা বাগানেই ভ্রমন পিপাসুদের ঢল নেমেছে। পুরাতন মহাসড়ক ও সাতছড়ি জাতীয় উদ্যান হওয়ার কারনে এ সড়কে মানুষের ভীড় প্রতিদিনই দেখা যায়। ভ্রমনে আসা আনোয়ার হোসেন জানান, ঈদের ছুৃটি মাত্র একদিন। তাই আজ ছেলে মেয়েদের নিয়ে চা বাগান দেখাতে এসেছি।
পলাশ ঢাকায় থাকেন, এসেছেন বাড়িতে। ঈদের পরদিন বাচ্ছা ও স্ত্রীসহ সকলকে নিয়ে বাগানে ঘুরতে এসেছেন। একই ভাবে বিভিন্ন এলাকা থেকে অসংখ্য মানুষ পরিবার পরিজন নিয়ে ঘুরতে এসেছেন।

সেই ইন্সপেক্টর লিয়াকতসহ ২০ পুলিশ ক্লোজড

করাঙ্গীনিউজ: কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়কে পুলিশের গুলিতে সেনাবাহিনীর সাবেক মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ নিহত হওয়ার ঘটনায় বাহারছড়া পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ ইন্সপেক্টর লিয়াকত আলীসহ ২০ জনকে ক্লোজড (প্রত্যাহার) করা হয়েছে।

শনিবার রাতে ফাঁড়ির পুরো টিমকে কক্সবাজার জেলা পুলিশ লাইনসে প্রত্যাহার করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেন।

রোববার (২ আগস্ট) বিকালে পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেন জানান, বাহারছড়া পুলিশ ফাঁড়িতে পুরো নতুন টিম দেয়া হয়েছে।

এদিকে ঘটনা তদন্তে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোহা. শাজাহান আলীকে কমিটির আহ্বায়ক করা হয়েছে। কমিটিকে আগামী ৭ কর্মদিবসের মধ্যে রিপোর্ট জমা দিতে বলা হয়েছে।

কমিটির অপর দুই সদস্য হলেন- কক্সবাজার জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ইকবাল হোসেন এবং সেনাবাহিনীর ১০ পদাতিক ডিভিশনের জিওসি ও কক্সবাজারের এরিয়া কমান্ডারের একজন প্রতিনিধি।

প্রসঙ্গত, গত ৩১ জুলাই রাত সাড়ে ১০টার দিকে কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়কে টেকনাফ উপজেলার বাহারছড়া ইউনিয়নের শামলাপুর চেকপোস্টে পুলিশের গুলিতে সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান (৩৬) নিহত হন। তার ওপর গুলি চালান বাহারছড়া ফাঁড়ির দায়িত্বরত পুলিশ ইন্সপেক্টর লিয়াকত।

চুনারুঘাটে অবৈধ মোটরসাইকেল ধরতে পুলিশের অভিযান

আব্দুর রাজ্জাক রাজুঃ জরুরি বিদ্যুতের কাজে নিয়োজিত, আইনজীবী, পুলিশ,সাংবাদিক,প্রেস,সংবাদপত্র,এরকম বিভিন্ন পেশা ও প্রতিষ্ঠানের নাম উল্লেখ করে চুনারুঘাট পৌরহরে ধাপিয়ে বেড়াচ্ছে অসংখ্য মোটর সাইকেল। আবারও কারো কারো ভাঙাচোরা মোটর সাইকেলের নাম্বার প্লেটে শোভা পাচ্ছে ‘এএফআর’ (অ্যাপ্লাইড ফর রেজিস্ট্রেশন) লেখা।

মোটর সাইকেলের আয়ূ শেষ হওয়ার পথে হলেও সেই ‘এএফআর’র মেয়াদ যেন শেষ হতে চাইছে না।

শনিবার ১ আগস্ট বিকেলে পৌর শহরে ওসি শেখ নাজমুল হক এর নেতৃত্বে সকল অফিসারগণ বিশেষ অভিযান করেন। অভিযানের শুরুতে নাম্বারপ্লেট বিহীন ও কাগজপত্র ছাড়া চলাচলকারী ৫টি মোটর সাইকেলের বিরুদ্ধে মোটরযান আইনে মামলা দেয়া হয়েছে । নাম্বার প্লেট বিহীন ও কাগজপত্র ছাড়া চলাচলকারী বিরুদ্ধে এবার জোরেশোরে অভিযানে নামছে চুনারুঘাট থানা পুলিশ।

অভিযানে বৈধ কাগজপত্র না থাকলে কাউকে ছাড় দেয়া হবে না বলে জানান ওসি শেখ নাজমুল হক। পুলিশ সূত্রে জানা যায়- নাম্বার প্লেটে পেশা ও পদবী লেখা রেজিস্ট্রেশনবিহীন মোটর সাইকেলগুলোদের বেশিরভাগই ব্যবহৃত হয় বিভিন্ন অপরাধ কর্মকান্ডে। ছিনতাই, হামলা, সংঘর্ষে সন্ত্রাসী ও অপরাধীরা এসকল মোটর সাইকেল ব্যবহার করে থাকে। তাই রেজিস্ট্রেশন ও বৈধ কাগজপত্র ছাড়া যেসব মোটর সাইকেল শহরে চলাচল করছে সেগুলো ধরতে বিশেষ অভিযানে নামছে চুনারুঘাট থানা পুলিশ।

পৌর শহরে বেশ কিছু মোটরসাইকেল অবৈধভাবে চলাচল করছে। এসব মোটরসাইকেল মাদকসহ বিভিন্ন অপরাধমূলক কর্মকান্ডে ব্যবহৃত হয় এবং মোটরযান অধ্যাদেশের আওতায় রেজিস্ট্রেশনবিহীন মোটরসাইকেল ব্যবহার সম্পূর্ণ বেআইনী।

ওসি শেখ নাজমুল হক মোটর সাইকেল মালিক ও চালকদের বিআরটিএ অফিস থেকে রেজিস্ট্রেশন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করার অনুরোধ করেন সেই সাথে মোটরসাইকেল বিক্রয়কারী এজেন্ট ও ডিলারদেরকে ক্রেতার নিকট মোটরসাইকেল হস্তান্তরের পূর্বেই রেজিস্ট্রেশন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করার আহ্বান জানান। এখন থেকে মাদের পাশাপাশি অবৈধ যানবাহনের বিরুদ্ধে অভিযান শুরু অভিযানকালে মোটরসাইকেল চালকদের মূল ডকুমেন্টসমূহ সাথে রাখার অনুরোধ করা হয়।

হবিগঞ্জে লেবু চাষিদের মুখে হতাশার কালোমেঘ

নিজস্ব প্রতিনিধি: হবিগঞ্জে লেবুর বাম্পার ফলন হলেও  হাসি নেই চাষিদের মুখে। দাম নিয়ে হতাশ তারা।  বড়ো সাইজের ১ হাজার লেবু বিক্রি হচ্ছে ১৫০০ থেকে ১৬০০ টাকায়। আর ছোট সাইজের হাজার লেবু বিক্রি হয়েছে ৬০০ থেকে ৭০০ টাকায়। আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় গত বছরের চেয়ে এবার হবিগঞ্জের পাহাড়ে লেবুর ফলন ভালো হয়েছে। জেলার চুনারুঘাট, নবীগঞ্জ, বাহুবল ও মাধবপুর উপজেলার বিশাল এলাকাজুড়ে একের পর এক দাঁড়িয়ে আছে পাহাড়ি টিলা। টিলার ওপর থেকে নিচ পর্যন্ত লেবু গাছে ছাওয়া। গাছে গাছে ঝুলছে লেবু।

লেবু চাষিরা জানান, সারা বছরই লেবু হয়। তবে বর্ষায় লেবুর ফলন তুলনামূলক বেশি। শুষ্ক মৌসুমে সেচ দিলেও লেবুর ভালো ফলন পাওয়া যায়। তাই পাহাড়ি এলাকার লোকজন পতিত জমি ফেলে না রেখে লেবু চাষ করছেন। কলম চারায় রোপনের বছরই ধরছে লেবু। আবার লেবু গাছের ফাঁকে ফাঁকে কলা, পেঁপে, মরিচ, কাঁঠাল গাছও লাগিয়েছেন অনেকে।

হবিগঞ্জ কৃষি বিভাগের তথ্য মতে, জেলায় প্রায় ৬ হাজার একর জমিতে লেবু চাষ হচ্ছে। প্রতি একরে ৮ থেকে ১০ মেট্রিক টন লেবু উৎপাদন হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। লেবু চাষকে কেন্দ্র করে জেলার মুছাই ও মিরপুরে প্রায় ১০টি আড়ৎ গড়ে উঠেছে। আরও নতুন করে কিছু আড়ৎ গড়ে উঠছে। চাষিরা বাগান থেকে লেবু সংগ্রহ করে এসব আড়তে নিয়ে যান। সেখান থেকে পাইকারি ব্যবসাযীরা লেবু কিনে দেশের নানা প্রান্তে পাঠান।

বাগান মালিক মর্তুজ আলী বলেন, ‘লেবু চাষে কোনো ঝুঁকি নেই। পাহাড়ি মাটিতে রোপনের বছর যেতেই ফলন পাওয়া যাচ্ছে। গোড়া পরিষ্কার করে অল্প কিছু সার দিলে ভালো ফলন পাওয়া যায়।’ তিনি বলেন, ‘বর্তমানে লেবুর দাম কম। তবে কোরবানির ঈদকে সামনে লেবুর দাম বাড়ার একটা সম্ভাবনা ছিল। এ আশায় গাছ থেকে কম লেবু সংগ্রহ করা হয়। তবে লাভ হয়নি। যদিও করোনা পরিস্থিতির শুরুতে লেবুর দাম বেশি ছিল। কিন্তু প্রায় দুই মাস হলো দাম কমে গেছে।’

মখলিছ মিয়া নামে এক লেবু চাষি বলেন, ‘লেবুর দাম অনেক কমে গেছে। আশা ছিল, ঈদে দাম বাড়বে। কিন্তু বাড়েনি। গাছে প্রচুর লেবু আছে। তবে গাছ থেকে লেবু সংগ্রহ করে আড়তে বিক্রি করে শ্রমিকের খরচ যোগান দেওয়া কঠিন হয়ে পড়েছে।’ আড়ৎ মালিক সানু মিয়া বলেন, ‘বর্তমান পরিস্থিতিতে পরিবহন সমস্যা রয়েছে। ঈদে লেবুর ভালো দাম ওঠার সম্ভাবনা ছিল। কিন্তু এবার তাও হলো না।’

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত উপপরিচালক (শস্য) মো. জালাল উদ্দিন বলেন, ‘হবিগঞ্জের পাহাড়ি এলাকায় সম্ভাবনাময় ফসল লেবু। আমরা লেবু চাষিদের নিয়মিত পরামর্শ দিচ্ছি। তারা লেবুর ভালো ফলনও পাচ্ছেন। এবার পাহাড়ে লেবুর বাম্পার ফলন হয়েছে। তবে এখন দামটা কিছু কম। সামনে দাম বাড়তে পারে।’

গত ২৪ ঘন্টায় করোনায় ২২ জনের মৃত্যু

করাঙ্গীনিউজ: দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় ২২ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে সর্বমোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে তিন হাজার ১৫৪ জনে দাঁড়িয়েছে।

এছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে নতুন করে এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৮৮৬ জন। ৩ হাজার ৬৮৪ টি নুমনা পরীক্ষায় এ তথ্য মিলেছে।

রোববার দুপুরে কোভিড-১৯ রোগ নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদফতরের নিয়মিত অনলাইন ব্রিফিংয়ে এসব তথ্য দেন অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক(প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা।

তিনি বলেন, রোববার ৩৬৮৪ টি নুমনা পরীক্ষা করা হয়েছে। যাদের মধ্যে আক্রান্ত হয়েছেন জন। এতে দেশে সবমিলিয়ে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে দুই লাখ ৪০ হাজার ৭৪৬ জনে। ২৪ ঘণ্টায় শনাক্তের হার ২৪ দশমিক ০৫ শতাংশ। গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন৫৮৬ জন। এ নিয়ে এ পর্যন্ত মোট সুস্থ হয়েছেন ১ লাখ ৩৬ হাজার ৮৩৯ জন।

রোববার মৃত ২২ জনের মধ্যে ঢাকা বিভাগের ৮ জন, চট্টগ্রাম বিভাগের ৩ জন, খুলনা বিভাগের ৩ জন, রাজশাহী বিভাগের ৪ জন, বরিশাল বিভাগের ২ জন এবং সিলেট বিভাগের ১ জন। হাসপাতালে মারা গেছেন ২০ জন এবং বাসায় ২ জন।

বুলেটিনে বরাবরের মতো করোনা থেকে সুরক্ষিত ও সুস্থ থাকতে সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহ্বান জানান ডা. নাসিমা।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার অ্যান্ড কন্ট্রোল রুম সূত্রে জানা গেছে, জুন মাসে ৯৮ হাজার ৩৩০ জন আক্রান্ত হন। জুন মাসে গড়ে প্রতিদিন ৩ হাজার ২৭৮ জন আক্রান্ত হন। আর সর্বোচ্চ সংখ্যক মৃত্যু হয়েছে জুলাই মাসে। সংখ্যাটি ১ হাজার ২৬৪ জন।

প্রসঙ্গত, গত ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয়। শুরুর দিকে আক্রান্ত মৃতের সংখ্যা কম থাকলেও পর্যায়ক্রমে তা বৃদ্ধি পেতে থাকে। গত ১৮ জুলাই আক্রান্তের সংখ্যা দুই লাখ পেরিয়ে যায় । গত ২ জুলাই করোনায় আক্রান্ত হন ৪ হাজার ১৯ জন , যা এখন পর্যন্ত একদিনে সর্বোচ্চ আক্রান্তের রেকর্ড।

ফেঞ্চুগঞ্জে বাস-মোটরসাইকেল সংঘর্ষে প্রকৌশলী নিহত

ফেঞ্চুগঞ্জ (সিলেট) প্রতিনিধি: সিলেটের ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলার মির্জাপুর এলাকায় বাস ও মোটরসাইকেল সংঘর্ষে ফেঞ্চুগঞ্জ শাহজালাল সারকারখানার প্রকৌশলী শহিদুল ইসলাম (৪০) নিহত হয়েছেন।

রবিবার (২ আগস্ট) দুপুরে মৌলভীবাজার-সিলেট আঞ্চলিক মহাসড়কে কুলাউড়া থেকে আসা একটি যাত্রীবাহী বাসের ধাক্কায় তিনি নিহত হন।

ফেঞ্চুগঞ্জ ফায়ার সার্ভিসের টিম লিডার মিজানুর রহমান বিষয়টি সত্যতা নিশ্চিত করেন।

তিনি আরো জানান, দুর্ঘটনার পরে বাস ও মোটরসাইকেল উদ্ধার করা হয়েছে কিন্তু বাস চালক পলাতক রয়েছেন।

নবীগঞ্জে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে যুবকের মৃত্যু

নবীগঞ্জ (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি: হবিগঞ্জের নবীগঞ্জে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে সাইফুর মিয়া (২১) নামে এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন দিলাল মিয়া নামের এক যুবক।

রোববার (২ আগস্ট) সকাল ১০ টায় উপজেলার আউশকান্দি ইউপির জিয়াদিপুর গ্রামে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত সাইফুর মিয়া মৃত হানিফ মিয়ার ছেলে।

স্থানীয়রা জানায়, সকালে নিজ বাড়ির ঘরের চালায় টিভির এন্টেনার লাগাতে গিয়ে বসত ঘরের চালার উপর দিয়ে বিদ্যুৎ এর লাইনে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয় দুই জন আহত হয়। পরে স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল হাসপাতালে নিয়ে জাওয়ার সময় রাস্তায় মারা যায় সাইফুর মিয়া।

জিয়াদিপুর গ্রামের মেম্বার ইকবাল হোসেন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

কমলগঞ্জে চা বাগান খুলে দেয়ার দাবিতে মানববন্ধন

কমলগঞ্জ (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি: মৌলভীবাজার জেলার কমলগঞ্জের ধলই চা বাগান অবিলম্বে খুলে দেওয়ার দাবিতে কমলগঞ্জের শমশেরনগর চা বাগানে চা ছাত্র-যুব সমাজ মানববন্ধন পালন করেছে।

রোববার(২ আগস্ট) সকাল ১১টায় শমশেরনগর চা বাগানের চাতলাপুর সড়কে এ মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়।

চা শ্রমিক নেতা সীতারাম বীনের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন চা শ্রমিক ইউনিয়নের মনু-ধলই ভ্যালীর সাধারণ সম্পাদক নির্মল দাশ পাইনকা, ছাত্রনেতা মোহন রবিদাস, নারী নেত্রী মেরি রাল্ফ, ছাত্র নেতা কৃষ্ণ রাজভর, চা বাগান পঞ্চায়েত কমিটির সম্পাদক শ্রীকান্ত কানু, বাবুল মাদ্রাজী প্রমুখ।

উল্লেখ্য, গত ২৭ জুলাই নিরাপত্তার কারণ দেখিয়ে বাগান কর্তৃপক্ষ অনির্দিষ্টকালের জন্য ধলই চা বাগান বন্ধ করে দেয়।

করোনা রোগীদের সেবায় অক্সিজেন সিলিন্ডার দিলেন ডা.কামরুল হাসান

চুনারুঘাট (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি :
হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে করোনা আক্রান্ত রোগীর চিকিৎসার জন্য ৩টি  অক্সিজেন সিলেন্ডার দিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব বিশ্ববিদ্যালয়ের নাক কান গলা বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড.কামরুল হাসান তরফদার।
রবিবার সকালে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চুনারুঘাট উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আব্দুল কাদির লস্করের হাতে তিনি অক্সিজেন সিলিন্ডার ডাক্তারদের সুরক্ষা সরঞ্জামসহ  অন্যান্য চিকিৎসা সামগ্রী  হস্তান্তর করেন।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উপ-পরিচালক রিপন কবির লস্কর,  চুনারুঘাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা  ডা.মোজাম্মেল হোসেন,চুনারুঘাট হাসপাতালে আর এম ও ফাতেমা হক,ডা.তনমুন তরফদার, হবিগঞ্জ জেলা ক্রীড়া সংস্থা সাবেক সহ সভাপতি জিয়াউল হাসান তরফদার মাহিন,  সাংবাদিক জাহাঙ্গীর আলম, মাসুম তরফদার,নুর উদ্দিন সুমন, ব্যবসায়ী ও সমাজসেবক এমদাদ চৌধুরী।

চুনারুঘাটে নিরিহ পরিবারের উপর হামলা, কলেজ ছাত্রীসহ আহত ২

করাঙ্গীনিউজ: হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলার শানখলা ইউনিয়নের লালচান তাজপুর টিলায় রাস্তার উপর বাঁশ কাটা নিয়ে নিরিহ একটি পরিবারের উপর হামলা চালিয়েছে একটি প্রভাবশালী মহল। এঘটনায় দুই জন আহত হয়েছেন।

শনিবার বিকেলে এ ঘটনাটি ঘটেছে। আহতরা হলেন- লালচান তাজপুর টিলার নুহু মিয়ার কলেজ পড়–য়া মেয়ে তাছলিমা জান্নাত ও তার চাচাত ভাই রাসেল মিয়া (২৬)। তাদেরকে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়- কলেজ পড়–য়া তাছলিমার বাড়ীতে যাবার রাস্তার উপর ঝড়ে একটি বাঁশ পড়ে যায়। এতে তাদের বাড়িতে আসা-যাওয়ার অসুবিধা সৃষ্টি হলে বাঁশের মালিক একই গ্রামের আব্দুল্লাহ ও তার ভাই মিজান মেম্বারকে বললে তারা বাঁশ কাটেননি। পরে তাছলিমা নিজেই রাস্তা দিয়ে আসা যাবার সুবিধার্থে বাঁশের মাথাটি কেটে দেন। খবর পেয়ে আব্দুল্লাহ, মিজান মেম্বার, আব্দুল কাইয়ূম, আব্দুর রউফ ও সারাজ মিয়া মিলে দেশিয় অস্ত্রপাতি নিয়ে তাদের উপর হামলা চালায়। এতে তাছলিমার চোখের নিচে মারাত্মক আঘাত হয় এবং তার চাচাত ভাই রাসেল মিয়ার মাথায় ও হাতে আঘাত পায়।

স্থানীয় অনেক মানুষের অভিযোগ- মিজান মেম্বার পূর্ব একাধিকবার তাছলিমার পরিবারকে নানাভাবে নির্যাতন করে আসছে। স্থানীয় গণ্যমান্য লোকজন সালিশে নিষ্পত্তি করে দিলেও মিজান মেম্বার তাদের উপর নির্যাতন করেই যাচ্ছেন।

স্থানীয় ওয়ার্ডের মহিলা মেম্বার আইয়ূব চান বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়েছি। যারা আঘাতপ্রাপ্ত হয়েছেন তাদেরকে হাসপাতালে প্রেরণ করে মিজান মেম্বারের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করেছি তাকে বাড়িতে পাইনি।

স্থানীয় ওয়ার্ডের মেম্বার মাহফুজ আহমেদ জানান- খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে তাছলিমা ও তার চাচাত ভাইকে আহত দেখে হাসপাতালে যাবার পরামর্শ দেই এবং মিজান মেম্বারের সাথে ফোনে যোগাযোগ করলে জানতে পারি মেম্বারের ভাই ও ছেলে আঘাতপ্রাপ্ত, তবে তাদের দেখিনি ।

নবীগঞ্জে নারীকে গলাকেটে হত্যা করল ডাকাতরা

নবীগঞ্জ (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি: হবিগঞ্জের নবীগঞ্জে ঈদের পর দিন করঁগাও ইউনিয়নের করঁগাও গ্রামে ডাকাতি কালে বসতঘরে ছলেমা বেগম (৪৫) নামে এক নারীকে গলাকেটে হত্যা করেছে ডাকাতদল।

ঘটনাটি ঘটেছে রবিবার(০২ আগস্ট) ভোর রাতে করঁগাও ইউনিয়নের করঁগাও গ্রামে।

মৃত ছলেমা বেগম করগাও গ্রামের মিলন মিয়ার স্ত্রী।এ ঘটনায় এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে। পরিবার-পরিজন,পাড়া প্রতিবেশিসহ চলছে শোকের মাতম। এবং এই মর্মান্তিক ঘটনায় আতঙ্কে রয়েছেন এলাকাবাসী।

স্থানীয় সূত্রে জানাযায়, প্রতিদিনের মত ছালেমা বেগম মেয়ে শান্তা বেগমকে নিয়ে একসাথে শুয়ে পড়েন।ভোর বেলা হঠাৎ করে মেয়ে চিৎকার শুনে ছুটে আসেন এলাকাবাসী এসে দেখতেন পান গলাকাটা অবস্থায় পরে রয়েছেন ছালেমা বেগম।পরে পুলিশকে খবর দিলে নবীগঞ্জ থানার একদল পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। মামলার সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি করেন এস আই আবু সাঈদ।

ছালেমা বেগমের স্বামী বলেন,আমার ২ টা বাড়ি থাকায় আমি আমার অন্য বাড়িতে ঘুমাতে গিয়েছিলাম। সকাল বেলা এসে দেখি আমার স্ত্রী ছালেমা বেগম কে বা কারা গলাকেটে হত্যা করেছে। ডাকাতরা ছালেমা বেগমের কাছ থেকে নগদ ১ লক্ষ ২০ হাজার টাকা গলাকেটে নিয়ে যায়। আমি প্রশাসনের কাছে এর সুষ্ঠ বিচার চাই।

নবীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ আজিজুর রহমান বলেন, ডাকাতরা নির্মমভাবে ছালেমা বেগমকে হত্যা করছে। ছালেমা বেগমের শরীরে একাধিক আগাতের চিহ্ন রয়েছে। আমরা তদন্তপূর্বক ঘটনার সাথে জড়িতের আইনের আওতাধীন নিয়ে আসবো।

ঘটনার খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন নবীগঞ্জ বাহুবলে সার্কেল এ এসপি পারভেজ আলম চৌধুরী।

সিলেট বিভাগে করোনায় আরো আক্রান্ত ৭৮

নিজস্ব প্রতিনিধি: সিলেট বিভাগে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন আরও ৭৮ জন। এনিয়ে সিলেট বিভাগে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৭ হাজার ৯৯২ জনে।এরমধ্যে সিলেট জেলায় ৪ হাজার ৩০৯ জন, সুনামগঞ্জে ১ হাজার ৫১২, হবিগঞ্জে ১ হাজার ১৮৫ এবং মৌলভীবাজারে ৯৮৬ জন রোগী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন।

রোববার (০২ আগস্ট) সিলেট বিভাগীয় পরিচালক (স্বাস্থ্য)’র কার্যালয় কর্তৃক করোনা পরিস্থিতির আপডেট (আরও তথ্যসহ) থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

এদিকে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে সিলেট জেলার আরও একজন মারা গেছেন। এ নিয়ে সিলেট বিভাগে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেলেন ১৪৭ জন।

এরমধ্যে সিলেট জেলায় ১০৯, সুনামগঞ্জে ১৫ জন, হবিগঞ্জে ১০ এবং মৌলভীবাজার জেলায় ১৩ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা মারা গেছেন।

অন্যদিকে সিলেট বিভাগে প্রতিদিনই বাড়ছে সুস্থ রোগী সংখ্যা। গত ২৭ এপ্রিল বিভাগে প্রথম সুনামগঞ্জে দুই রোগী করোনাভাইরাস জয় করে বাড়ি ফেরেন। এরপর প্রতিদিন বিভাগের বিভিন্ন জেলার রোগীরা করোনা জয় করে বাড়ি ফিরছেন।

সবশেষ রোববার (২ আগস্ট) দুপুর পর্যন্ত সিলেট বিভাগের ৩ হাজার ৫১৫ জন রোগী সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন। এরমধ্যে সিলেট জেলায় ১০৯০, সুনামগঞ্জে ১১৩৫, হবিগঞ্জে ৭৯১, মৌলভীবাজারে ৫৭১ জন রোগী করোনা জয় করে বাড়ি ফিরেছেন।

আর করোনাভাইরাসের উপসর্গ ও করোনায় আক্রান্ত হয়ে সিলেট বিভাগের বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন ১ হাজার ১৫৭ জন। এরমধ্যে ১৬৪ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে আর বাকিরা উপসর্গ নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি আছেন।

বাহুবল উপজেলা ছাত্রদলের আহব্বায়ক কমিটি গঠন

নিজস্ব প্রতিনিধি: দীর্ঘদিন পর বাহুবল উপজেলা ছাত্রদলের আহব্বায়ক কমিটি ঘোষনা করেছে জেলা ছাত্রদল।

মঙ্গলবার (১ সেপ্টেম্বর) হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রদলের সভাপতি মোহাম্মদ এমদাদুল হক ইমরান ও সাধারণ সম্পাদক রুবেল আহমদ চৌধুরীর স্বাক্ষরিত জেলার একটি প্যাডে উক্ত কমিটির অনুমোদন দেন।

ওই কমিটি আগামী ২১ দিনের মধ্যে পূর্ণাঙ্গ কমিটি করার কথাও বলেন।

আলিফ সোবহান চৌধুরী সরকারী কলেজের সাবেক সভাপতি লুৎফুর রহমান চৌধুরী সুমনকে আহব্বায়ক ও কলেজ ছাত্রদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক স্বপন তালুকদারকে সদস্য সচিব করে ২১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়।

কমিটির অন্যান্য সদস্যরা হলেন, যুগ্ন আহব্বায়ক মোবারক মিয়া, সগির তালুকদার, আবুল বাসেত মোক্তার, দেলোয়ার হোসেন, পীর মোঃ ফজলুর রহমান, বদরুল আলম বদরুল, খালেদ মিয়া, নাছির উদ্দিন সুমন, শাখাওয়াত হোসেন সৌরভ, তৌহিদুল বাহার হৃদয়।

সদস্যরা হলেন, মুকিত মিয়া পিয়াস, সাব্বির আহমদ ইমন, আরিফুল ইসলাম কাইয়ূম, আরিফ হাসান আফজল,মনির হোসেন রকি, মোঃ রুবেল মিয়া, সাইফুর রহমান, হাবিবুর রহমান হাবিব, আফজল মিয়া।

 

টাকা ধার না দেয়ায় সিলেটে প্রবাসী নারী খুন

নিজস্ব প্রতিনিধি, সিলেট: ঈদের আগে সিলেটের ওসমানীনগরে খুন হওয়া রহিমা বেগমের লাশ উদ্ধারের ২৪ ঘন্টার মধ্যে হত্যাকন্ডের রহস্য উদঘাটন করেছে পুলিশ।

তারা বলছে, ঈদ উপলক্ষে প্রবাসী মহিলার কাছে টাকা ধার চেয়ে না পেয়ে তাকে গলা কেটে হত্যা করে লাশ বাথরুমে রেখে পালিয়ে যায় হত্যাকারী। আর এ হত্যাকারী আব্দুল জলিল কালু (৩৯)।

পুলিশ বলছে, শুক্রবার রাতে অভিযান চালিয়ে গ্রেফতারের পর প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে এমন তথ্য জানিয়েছেন আব্দুল জলিল কালু। গ্রেফতারকৃত কালু ২০০৭ সালে গোয়ালাবাজারে একইভাবে সংঘটিত হওয়া একটি হত্যা মামলারও আসামি।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার উমরপুর ইউনিয়নের কটালপুর গ্রামের মৃত আখলু মিয়ার স্ত্রী যুক্তরাজ্য প্রবাসী রহিমা বেগম ওরফে আমিনা (৬০) তার ৪ সন্তানসহ যুক্তরাজ্যে থাকতেন। গত ২ বছর ধরে গোয়ালাবাজারের করনসী রোডে নিজস্ব বাসায় তিনি বসবাস করছেন। পার্শবর্তী হেলাল ভিলায় ভাড়া থাকতেন নগরীকাপন গ্রামের আব্দুল কাছিমের ছেলে আব্দুল জলিল ওরফে কালু।

পাশাপাশি বাসা থাকায় পরিচিতর সুবাদে কালু গত মঙ্গলবার (২৮ জুলাই) প্রবাসী রহিমা বেগমের কাছে ঈদ উপলক্ষে ৫ হাজার টাকা ধার চায়। রহিমা বেগম টাকা দিতে অপারগতা প্রকাশ করেন এবং কালুকে তাড়িয়ে দেন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে রহিমা বেগমকে খুন করার পরিকল্পনা করেন তিনি। পরিকল্পনা অনুযায়ী মঙ্গলবার রহিমার ঘরে লুকিয়ে থাকেন কালু। কিছু সময় পর তিনি পিছন থেকে রহিমার মাথায় বাঁশের লাঠি দিয়ে আঘাত করেন। এতে রহিমা মাটিতে পরে যান। এরপর নড়াচড়া করতে থাকায় বটি দা দিয়ে তার গলা কেটে দেন কালু। পরবর্তীতে তিনি ঘরে তালা দিয়ে পালিয়ে যান।

রহিমা বেগমের ব্যবহৃত মোবাইল ফোনটি মঙ্গলবার (২৮ জুলাই) বিকেল থেকে বন্ধ থাকায় দেশে তার আত্মীয়রা বৃহস্পতিবার রাতে রহিমা বেগমের বাসায় গিয়ে বাসাটি তালাবদ্ধ দেখতে পান। পরে গভীর রাতে থানা পুলিশের উপস্থিতিতে গেইট ও দরজার তালা ভেঙে ঘরে প্রবেশ করে বাথরুমের মেঝেতে রহিমা বেগমের গলা কাটা রক্তাক্ত লাশ পড়ে থাকতে দেখেন। এ সময় রহিমা বেগমের ব্যবহৃত মোবাইল ফোনটি খুঁজে পাওয়া যায়নি।

শুক্রবার সকাল ১০টায় সিলেটের পুলিশ সুপার ফরিদ উদ্দিন পিপিএম ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ওসমানীনগর সার্কেল) রফিকুল ইসলাম, থানার ওসি শ্যামল বনিক ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। এছাড়া পুলিশ ইনভেস্টিগেশন অব ব্যুরো (পিবিআই) ও সিআইডির দুটি টিম ঘটনাস্থলে এসে বিভিন্ন আলামত সংগ্রহ করে। থানা পুলিশ নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য ওসমানী হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করে।

এদিকে, শুক্রবার রাতে এ ঘটনায় একটি হত্যা মালমা দায়ের করেন নিহত রহিমার ছোট ভাই উপজেলার দিরারাই গ্রামের আব্দুল কাদির। মামলা দায়ের এবং লাশ উদ্ধারের পর হত্যাকান্ডে  জড়িতদের গ্রেফতারে তৎপর হয়ে উঠে পুলিশ। এক পর্যায়ে শুক্রবার দিনগত রাত সোয়া ৩টার দিকে গোয়ালাবাজারস্থ হেলাল ভিলা (করনসী রোড) থেকে আব্দুল জলিল কালুকে গ্রেফতার করা হয়।

পুলিশ জানায়, গ্রেফতারের পর দীর্ঘ জিজ্ঞাসাবাদের একপর্যায়ে কালু তাকে ৫ হাজার টাকা ধার না দেওয়ায় রহিমা বেগমকে গলা কেটে হত্যার কথা স্বীকার করেন। শনিবার (১ আগস্ট) পুলিশ তাকে নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রহিমা বেগমের মোবাইল ফোন ও ২৮ জুলাই বিকেল ৫টার দিকে সংঘটিত এ হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত বটি দা উদ্ধার করে।

ওসমানীনগর থানার এস আই সুজিত চক্রবর্তী বলেন, লাশ উদ্ধারের পর থেকে পুলিশ বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে হত্যাকারী কালুকে শনাক্ত করে গ্রেফতার করে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের জন্য যে দুইজনকে থানায় আনা হয়েছিল, জিজ্ঞাসাবাদ শেষে তাদের ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

ওসমানীনগর থানার অফিসার ইনচার্জ শ্যামল বনিক বলেন, ‘আব্দুল জলিল কালুকে গ্রেফতারের পর তার স্বীকারোক্তি মতে টাকা ধার না দেওয়ার প্রতিশোধ হিসেবে সে একাই প্রবাসী মহিলাকে গলা কেটে হত্যা করেছে বলে পুলিশকে জানিয়েছে। ইতোমধ্যে খুনের আলামত জব্দ করা হয়েছে।’