Oops! It appears that you have disabled your Javascript. In order for you to see this page as it is meant to appear, we ask that you please re-enable your Javascript!
 #  বাহুবলে সংঘর্ষের ঘটনায় ৫শ জনের বিরুদ্ধে মামলা,গ্রেফতার ২৫ #  লিবিয়ায় মানব পাচারকারীদের গুলিতে ২৬ বাংলাদেশিসহ নিহত ৩০ #  লাখাইয়ে ‘বিপর্যয়ে সৈনিকরা’ কাজ করেছে দিন রাত #  করোনা ও কৃষি #  হবিগঞ্জে আরো ৭ জন শনাক্ত, মোট ১৭১ #  বাহুবলে অবৈধ বালু উত্তোলন, লক্ষ টাকা জরিমানা #  বাহুবলে সরকারি চালের বস্তা জব্দ: দোকান কর্মচারীর জেল #  ১৫ জুন পর্যন্ত মানতে হবে ১৫ শর্ত #  খোয়াই পত্রিকার সার্কুলেশন ম্যানেজারের পিতা আর নেই #  নবীগঞ্জে সরকারি ২৫০০ টাকার তালিকায় অনিয়ম! #  দেশে করোনায় নতুন শনাক্ত ২০২৯ #  শ্রীমঙ্গলে মুক্তিযোদ্ধা বিকাশ দত্ত’র সৎকার করল এক মুসলিম সংগঠন #  বাহুবলে মিষ্টির দোকান থেকে সরকারী চাল জব্দ: আটক ১ #  ইউনাইটেড হাসপাতালে আগুন, ৫ করোনা রোগীর লাশ উদ্ধার #  ভারতীয়দের গণপিটুনিতে মাধবপুরের যুবক নিহত

বানিয়াচঙ্গের ইউপি চেয়ারম্যানসহ ১২ জনের কারাদণ্ড

নিজস্ব প্রতিনিধি, হবিগঞ্জ: হবিগঞ্জ জেলার বানিয়াচবঙ্গবন্ধি  উপজেলার কাগাপাশা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এরশাদ আলীসহ ১২ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড প্রদান করা হয়েছে। একটি বিলে মাছ ধরার ঘটনা নিয়ে হামলার ঘটনায় দায়ের করা মামলায় এ সাজা প্রদান করা হয়।

বুধবার হবিগঞ্জের চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট তানিয়া কামাল এ রায় ঘোষণা করেন।

মামলার বিবরণে জানা যায়, বানিয়াচঙ্গ উপজেলার বাঘহাতা গ্রামের মালিকানাধিন ঘাটুয়া বিলটি লীজ গ্রহণ করেন একই গ্রামের আব্দুল হানিফ। কিন্তু পার্শ্ববর্তী চমকপুর গ্রামের বর্তমান কাগাপাশা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এরশাদ আলীর নেতৃত্বে একদল লোক ২০০৭ সনের ৭ জানুয়ারি ওই বিলে অবৈধভাবে মাছ ধরতে যায়। খবর পেয়ে লীজ গ্রহীতার লোকজন ঘটনাস্থলে গিয়ে তাদের বাঁধা দেন। এ সময় এরশাদ আলীর নেতৃত্বে লোকজন তাদের উপর হামলা চালায়। এতে লিজ গ্রহীতার ভাই আব্দুল হাকিমসহ কয়েকজন আহত হন।

এ ঘটনায় আব্দুল হাকিম বাদী হয়ে কাগাপাশা ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান এরশাদ আলীসহ ৪৪ জনকে অভিযুক্ত করে বানিয়াচং থানায় মামলা দায়ের করেন। উক্ত মামলায় স্বাক্ষী গ্রহণ শেষে চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট তানিয়া কামাল গত ১৭ সেপ্টেম্বর রায় ঘোষণা করেন।

আদেশে আসামী কাগাপাশা ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান এরশাদ আলীকে ২ মাসের স্বশ্রম কারাদণ্ড ও ৫ হাজার টাকা জরিমান প্রদান করেন। জরিমানা অনাদায়ে ২০ দিনের কারাদণ্ড প্রদান করেন। অপর ১১ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড প্রদান করেন।

বাদী পক্ষে মামলা পরিচালনা করেন এড. লুৎফুর রহমান তালুকদার, সরকার পক্ষে ছিলেন এপিপি আবুল কালাম এবং আসামী পক্ষে ছিলেন এডঃ শেখ ফরহাদ এলাহী সেতু।