1. nafiz.hridoy285@gmail.com : Hridoy Fx : Hridoy Fx
  2. miahraju135@gmail.com : MD Raju : MD Raju
  3. koranginews24@gmail.com : সম্পাদক : সম্পাদক
পদ্মা সেতুর উদ্বোধন আজ - করাঙ্গীনিউজ
  • Youtube
  • English Version
  • বুধবার, ১০ অগাস্ট ২০২২, ০৫:৫৪ অপরাহ্ন

করাঙ্গী নিউজ
স্বাগতম করাঙ্গী নিউজ নিউজপোর্টালে। ১৩ বছর ধরে সফলতার সাথে নিরপেক্ষ সংবাদ পরিবেশন করে আসছে করাঙ্গী নিউজ। দেশ বিদেশের সব খবর পেতে সাথে থাকুন আমাদের। বিজ্ঞাপন দেয়ার জন‌্য যোগাযোগ করুন ০১৮৫৫৫০৭২৩৪ নাম্বারে।

পদ্মা সেতুর উদ্বোধন আজ

  • সংবাদ প্রকাশের সময়: শনিবার, ২৫ জুন, ২০২২

করাঙ্গীনিউজ: স্বপ্নের পদ্মা সেতুর উদ্বোধনকে ঘিরে ঢাকাসহ সব মহানগর, জেলা এবং উপজেলায় সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নিয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বিভিন্ন ইউনিট।

নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণের পাশাপাশি জোরদার করা হয়েছে টহল। গোয়েন্দা তথ্য বিশ্লেষণ করে নিরাপত্তা ছক প্রণয়ন করেছে জেলা পুলিশ, র‌্যাব, সোয়াট, হাইওয়ে পুলিশ, ট্রাফিক পুলিশ, বোম্ব ডিসপোজাল ইউনিট, ডগ স্কোয়াড, সেতু মন্ত্রণালয়ের নিরাপত্তা কমিটি এবং নৌ-পুলিশসহ অন্যান্য সংস্থা।

আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে। সূত্র আরও জানায়, নদীপথে বরিশাল, মাদারীপুর, শরীয়তপুর, ফরিদপুর, মুন্সীগঞ্জ এবং চাঁদপুরসহ বিভিন্ন জেলা থেকে বিপুল সংখ্যক লোক লঞ্চ ও ইঞ্চিনচালিত নৌকায় অনুষ্ঠানস্থলে আসবেন। এ সময় অতিরিক্ত যাত্রী বেঝাই, যাত্রীদের অতি উৎসাহ ও অনিয়ন্ত্রিত চলাচলের কারণে নৌ দুর্ঘটনাসহ প্রাণহানির আশঙ্কা আছে। এ বিষয়টিকে মাথায় রেখে এরই মধ্যে নৌ পুলিশকে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে পুলিশ সদর দপ্তর।

আজ ২৫ জুন যান চলাচলের জন্য খুলে দেওয়া হবে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলার মানুষের বহু প্রত্যাশিত স্বপ্নের পদ্মা সেতু। মাওয়া প্রান্তে সুধী সমাবেশের পর সেতুর উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সুধী সমাবেশে মন্ত্রিসভার সদস্য, বিভিন্ন দেশের কূটনীতিক, রাজনীতিবিদি, বিশিষ্ট ব্যক্তি এবং নির্মাণ সহযোগী প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিসহ ৩ হাজারের বেশি অমন্ত্রিত অতিথি থাকবেন।

এরপর পদ্মা সেতু পার হয়ে জাজিরা প্রান্তে নামফলক উন্মোচন করবেন প্রধানমন্ত্রী। কাঁঠালবাড়ী ঘাটে আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসমাবেশে বক্তব্য দেবেন তিনি। সমাবেশে প্রায় ১০ লাখ লোকের সমাগম ঘটবে বলে জানা গেছে। গোয়েন্দা তথ্য অনুয়ায়ী সরকারবিরোধী চক্র এবং দেশি-বিদেশি স্বার্থান্বেষী মহল জনগণের দৃষ্টি অন্যদিকে ফেরাতে নাশকতা ও ধ্বংসাত্মক কর্মকাণ্ডে লিপ্ত হতে পারে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে পুলিশের ডিআইজি (অপস অ্যান্ড মিডিয়া) হায়দার আলী খান যুগান্তরকে বলেন, পদ্মা সেতুর উদ্বোধনকে ঘিরে কেবল অনুষ্ঠানস্থলেই নয়, সারা দেশেই নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। হোটেল এবং মেসগুলোতে ইতোমধ্যে অভিযান চালানো হয়েছে। নাশকতা চালাতে পারেন, গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে তাদের কঠোর নজরদারিতে রাখা হয়েছে।

পুলিশের নিরাপত্তা ব্যবস্থা ছাড়াও রাষ্ট্রপতি এবং প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা বাহিনীগুলোর পক্ষ থেকেও নেওয়া হয়েছে বিশেষ ব্যবস্থা। সাম্প্রতিক সময়ে যেসব নতুন সিম নেওয়া হয়েছে, সাইবার পেট্রোলিংয়ের মাধ্যমে সেগুলো মনিটরিং করা হচ্ছে।

সুধী সমাবেশস্থল, সভামঞ্চ এবং অনুষ্ঠানস্থল ও এর আশপাশের এলাকা ইতোমধ্যে সুইপিং করা হয়েছে। নাশকতা বা যে কোনো ধরনের ধ্বংসাত্মক কর্মকাণ্ড এড়াতে প্রত্যেকটি প্রবেশপথে সবাইকে আর্চওয়ে গেট অতিক্রম করতে হবে। এ সময় হ্যান্ড মেটাল দিয়ে সবার দেহ তল্লাশি করা হবে

ডিআইজি হায়দার আলী খান যুগান্তরকে বলেন, সব ধরনের ঝুঁকি পর্যালোচনা করেই আমরা নিরাপত্তা ছক প্রণয়ন করেছি। সারা দেশে পর্যাপ্ত ফোর্স মোতায়েন করা হয়েছে। যেসব জায়গায় বড় পর্দায় উদ্বোধনী অনুষ্ঠান দেখানো হবে, সেসব জায়গায় বাড়তি নজদারির ব্যবস্থা করা হয়েছে। ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা ঢেলে সাজানো হয়েছে।

তিনি বলেন, আইনশৃঙ্খলার অবনতি যাতে না হয়, সেজন্য যে ধরনের ব্যবস্থা নেওয়া উচিত সবই আমরা নিয়েছি। আইন প্রয়োগকারী সংস্থার বিভিন্ন ইউনিট সমন্বয়ের মাধ্যমে কাজ করছে। বিভিন্ন মেগা প্রকল্প এবং কেপিআইভুক্ত প্রতিষ্ঠানসহ সবকিছুই নিরাপত্তার চাদরে ঢেকে দেওয়া হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, জনসভাস্থলে দুটি উচ্চ প্রযুক্তির ওয়াচ টাওয়ার বসানো হয়েছে। টাওয়ার দুটি সম্প্রতি আমেরিকা থেকে আনা হয়েছে। এর আগে দেশের কোনো অনুষ্ঠানে এ ধরনের টাওয়ার ব্যবহার করা হয়নি।

পুলিশ সদর দপ্তরের এআইজি (মিডিয়া) কামরুজ্জামান বলেন, পদ্মা সেতুর উদ্বোধনকে ঘিরে যত ধরনের নিরাপত্তা ব্যবস্থার নেওয়ার প্রয়োজন, সবই নেওয়া হয়েছে। স্থল এবং নৌপথের পাশাপাশি আকাশপথেও পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। ইতোমধ্যে ভিভিআইপি মুভমেন্টের মহড়া অনুষ্ঠিত হয়েছে। আকাশে হেলিকপ্টারের টহল চলছে।

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) উপকমিশনার (ডিসি) ফারুক আহমেদ বলেন, পদ্মা সেতুর উদ্বোধন উপলক্ষ্যে রাজধানীজুড়ে ব্যাপক নিরাপত্তা প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। টহল জোরদারের পাশাপাশি অতিরিক্ত চেকপোস্ট বসানো হয়েছে।

তিনি বলেন, ডিএমপির পক্ষ থেকে শনিবার সকালে এক বর্ণাঢ্য র‌্যালির আয়োজন করা হয়েছে। র‌্যালিটি ডিএমপি সদর দপ্তর থেকে শুরু হয়ে রাজারবাগ পুলিশ লাইন্সে গিয়ে শেষ হবে।

একটি বিশেষ সংস্থার গোয়েন্দা প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের উৎসবমুখর পরিবেশকে ম্লান করে দিতে অপশক্তির পক্ষ থেকে পদ্মা সেতুর আশপাশে বা চলমান মেগা প্রকল্পসহ দেশের কোথাও বড় ধরনের নাশকতামূলক কর্মকাণ্ড ঘটানো হতে পারে।

সম্প্রতি সীতাকুণ্ডে বিএম কনটেইনারে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড এবং মৌলভীবাজারে পারাবত ট্রেনের বগিতে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা দুটি রহস্যজনক। সরকারবিরোধীরা পদ্মা সেতুর উদ্বাধনকে ঘিরেও নাশকতার অপচেষ্টা চালাচ্ছে। দেশের সব কেপিআইয়ের পাশাপাশি মুন্সীগঞ্জ, শরীয়তপুর এবং মাদারীপুরের গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনায় নিরাপত্তা জোরদার করতে হবে।

পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের নিরাপত্তা ব্যবস্থার সঙ্গে যুক্ত এক কর্মকর্তা বলেন, সেতুর নিচের কাঁচা রাস্তা ও এক্সপ্রেসওয়ে থেকে সমাবেশস্থলগামী সব ফিডার রোডে সাদা পোশাকে ফোর্স মোতায়েন করা হয়েছে। অনুষ্ঠানে আগতদের জন্য পর্যাপ্ত খাবার পানি ও টয়লেটের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুতের ব্যবস্থাসহ বিকল্প হিসাবে জেনারেটরের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

জরুরি পরিস্থিতি মোকাবিলায় অ্যাম্বুলেন্স, ফায়ার সার্ভিস, ডুবুরি দল, উদ্ধারকারী জাহাজ ও স্ট্রাইকিং ফোর্স প্রস্তুত রাখা হয়েছে। দুটি অত্যাধুনিক ওয়াচ টাওয়ার ছাড়াও বেশ কয়েকটি ওয়াচ টাওয়ার নির্মাণ করা হয়েছে। ওয়াচ টাওয়ার থেকে সার্বিক পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণের জন্য বায়নোকুলারসহ ফোস মোতায়েন করা হয়েছে। অনুষ্ঠানস্থল ও এর আশপাশে বিপুলসংখ্যক সিসি (ক্লোজ সার্কিট) ক্যামেরা স্থাপন করা হয়েছে। কন্ট্রোল রুমের মাধ্যমে এসব ক্যামেরা মনিটরিং করা হচ্ছে। নদীপথে নৌ পুলিশের পাশাপাশি কোস্টগার্ড দায়িত্ব পালন করছে। গাড়ি অনুযায়ী ট্রাফিক পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে বলে ওই কর্মকর্তা জানান।

পরিদর্শনে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী : স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র তথ্য অফিসার শরীফ মাহমুদ অপু জানিয়েছেন, পদ্মা সেতুর উদ্বোধন অনুষ্ঠানস্থল পরিদর্শন করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামন খান কামাল।

তিনি শুক্রবার বিকালে পদ্মা সেতুর উদ্বোধনের মুন্সীগঞ্জ ও ফরিদপুরের অনুষ্ঠানস্থল পরিদর্শন করেন। পরিদর্শনকালে তিনি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী উদ্বোধন অনুষ্ঠানস্থল ঘুরে দেখেন। পরিদর্শনকালে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের সিনিয়র সচিব আখতার হোসেন তার সঙ্গে ছিলেন।

জনসভাস্থলে আইজিপি : শুক্রবার রাতে পুলিশ সদর দপ্তর থেকে পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, পদ্মা সেতু উদ্বোধন উপলক্ষ্যে মাদারীপুরে প্রধানমন্ত্রীর জনসভাস্থল পরিদর্শন করেন বাংলাদেশ পুলিশের ইন্সপেক্টর জেনারেল ড. বেনজীর আহমেদ। পরিদর্শন শেষে তিনি বলেন, সেতুর উদ্বোধন উপলক্ষ্যে দেশব্যাপী পুলিশের পক্ষ থেকে সর্বোচ্চ নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, আমরা সর্বশেষ নিরাপত্তা পরিস্থিতি দেখতে এসেছি। জনসভাস্থলে যাওয়া-আসার পথ কেমন হবে, গাড়ি পার্কিং কেমন হবে, এসব বিষয়ে আমরা ট্রাফিক পরামর্শ দিয়েছি। এই নির্দেশনা ও বিধিনিষেধ মানলে সবার জন্য জনসভাস্থলে আসা সুবিধা হবে। এ ছাড়া রাস্তায় সাইনপোস্টিং দেওয়া আছে। যারা এখানে কখনো আসেননি, তারাও খুব সহজে এই জনসভাস্থলে প্রবেশ করতে পারবেন।

এ সময় র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) মহাপরিচালক (অতিরিক্ত আইজি) চৌধুরী আবদুল্লাহ আল মামুন এবং নৌ পুলিশের প্রধান অতিরিক্ত আইজি মো. শফিকুল ইসলামসহ পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

সূত্র: দৈনিক যুগান্তর

সংবাদটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
x