1. nafiz.hridoy285@gmail.com : Hridoy Fx : Hridoy Fx
  2. miahraju135@gmail.com : MD Raju : MD Raju
  3. koranginews24@gmail.com : সম্পাদক : সম্পাদক
নিখোঁজের ৪ দিন পর নদীতে মিলল যুবকের লাশ - করাঙ্গীনিউজ
করাঙ্গী নিউজ
স্বাগতম করাঙ্গী নিউজ নিউজপোর্টালে। ১৩ বছর ধরে সফলতার সাথে নিরপেক্ষ সংবাদ পরিবেশন করে আসছে করাঙ্গী নিউজ। দেশ বিদেশের সব খবর পেতে সাথে থাকুন আমাদের। বিজ্ঞাপন দেয়ার জন‌্য যোগাযোগ করুন ০১৮৫৫৫০৭২৩৪ নাম্বারে।

নিখোঁজের ৪ দিন পর নদীতে মিলল যুবকের লাশ

  • সংবাদ প্রকাশের সময়: শুক্রবার, ২২ এপ্রিল, ২০২২

নিজস্ব প্রতিনিধি, সুনামগঞ্জ:
সুনামগঞ্জের ছাতকে নিখোঁজের চার দিন পর সুরমা নদী থেকে এক যুবকের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

শুক্রবার দুপুরে দোয়ারাবাজার উপজেলার সুরমা নদীর ভোজনা এলাকায় একটি ড্রেজিং জাহাজের পাইপের সঙ্গে ভাসমান লাশ দেখতে পেয়ে স্থানীয়রা থানায় খবর দেন। পরে পুলিশ মতিউর রহমান নামে ওই যুবকের লাশ উদ্ধার করে।

মতিউর রহমান উপজেলার নোয়ারাই ইউনিয়নের লক্ষীবাউর গ্রামের আফতাব মিয়ার ছেলে।

জানা যায়, গত মঙ্গলবার রাতে একই গ্রামের জাবির মিয়ার সঙ্গে সুরমা নদীতে মাছ ধরার কথা বলে নদীতে যান মতিউর রহমান (২৬)। দুজন একসঙ্গে নদীতে মাছ ধরতে গিয়ে ওই রাতে জাবির মিয়া বাড়ি ফিরে এলেও মতিউর রহমান বাড়িতে ফিরেননি।

তার পরিবার জানায়, একই গ্রামের আব্দুর রহিমের ছেলে জাবির মিয়া ওই রাতে সুরমা নদীতে মাছ ধরার কথা বলে মতিউর রহমানকে বাড়ি থেকে ডেকে নেন। এরপর থেকে তার বাবা মা ছেলে মতিউর রহমানকে খোঁজাখুঁজি করে কোথায় তার সন্ধান না পেয়ে বাবা আফতাব মিয়া বাদী হয়ে ছাতক থানায় একটি জিডি দায়ের করেন।

নিখোঁজের পর থেকে জাবির মিয়ার কথাবার্তায় বেশ রহস্য দেখা দেয়। একেক সময় একেক ধরনের কথা বলেন জাবির মিয়া।

পূর্বশত্রুতার জেরে জাবির মিয়া মাছ ধরার কথা বলে মতিউর রহমানকে নদীতে নিয়ে পরিকল্পিতভাবে কুপিয়ে হত্যা করেন বলে নিহতের পরিবার অভিযোগ করেন।

ওই রাতে প্রচণ্ড ঝড়ের সময় সুরমা নদীর বাউশা এলাকায় থাকা নদী খননের একটি জাহাজে নিয়ে তাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে তাকে নদীতে ফেলে দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ নিহতের পরিবারের।

এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার রাতে এসআই আতিকুল ইসলাম খন্দকার গোপন সংবাদে ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে জাবির মিয়াকে তার নিজ বাড়ি থেকে আটক করে।

জাবির মিয়ার ব্যবহৃত মোবাইল ফোনের সূত্র ধরে আরও ৩ জনকে আটক করে থানা পুলিশ। ওই তিনজন যুবক সুরমা নদীর বাউশা এলাকায় থাকা নদী খনন কাজের জাহাজ এক্যুয়া-৩ এর শ্রমিক।

এ ব্যাপারে এসআই আতিকুল ইসলাম খন্দকার জানান, চারজনকে সন্দেহভাজন হিসেবে আটক করা হয়েছে।

দোয়ারাবাজার থানার এসআই দিলু দে লাশ উদ্ধারের ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, লাশের দুটো চোখসহ দেহের কয়েকটি স্থানে ধারালো অস্ত্রের আঘাতে চিহ্ন রয়েছে।

দোয়ারাবাজার থানার ওসি দেব দুলাল ধর নিখোঁজের লাশ উদ্ধারের এ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, লাশ ময়নাতদন্তের জন্য সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে মর্গে পাঠানো হয়েছে।

ছাতক থানার ওসি মাহবুবুর রহমান বলেন, সন্দেহজনক তিন যুবককে আটক করে তাদের জিজ্ঞাসাবাদ চলছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
x