#  সেপ্টেম্বরে এইচএসসি পরীক্ষার পরিকল্পনা #  দেশে ২৪ ঘন্টায় করোনায় মৃত্যু ৩৩ জন #  বানিয়াচংয়ে হাসপাতাল ব্যবস্থাপনা কমিটির সভা #  বাহুবলে শ্রীশ্রী শচীঅঙ্গন ধামে রহস্যজনক চুরি,আটক ১ #  নবীগঞ্জে ভুয়া সিআইডি আটক #  হবিগঞ্জ- লাখাই আঞ্চলিক মহাসড়কে ঘটতে পারে দূর্ঘটনা #  নবীগঞ্জে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তিকে জরিমানা #  প্রণোদনা পাচ্ছেন হবিগঞ্জের কৃষকরা #  পিইসি ও জেএসসি পরীক্ষা হচ্ছে না #  হবিগঞ্জে আরও ৩৪ জনের করোনা শনাক্ত #  বিশ্বনাথে এমপি মোকাব্বির খানের গাড়িতে হামলা #  বাহুবলে জাতীয় শোক দিবস পালনের প্রস্তুতি সভা #  শায়েস্তাগঞ্জে গরীব মেধাবী শিক্ষার্থীদের মাঝে শিক্ষাবৃত্তি প্রদান #  দেশে ২৪ ঘন্টায় করোনায় মৃত্যু ৩৯ জন #  মাধবপুরে ভারতীয় চা পাতাসহ আটক ২

নবীগঞ্জে ভিক্ষুক সমিতির নামে চাঁদা!

নবীগঞ্জ (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের নবীগঞ্জ উপজেলার রুস্তমপুর টোলপ্লাজায় একটি ভিক্ষুক সমিতি গঠনের নামে আওয়ামীলীগ নেতার চাঁদাবাজির ঘটনা নিয়ে সর্বত্র তোলপাড় হচ্ছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, মহাসড়কের টোল প্লাজায় প্রতিদিন শত শত গাড়ি এখানে দাড়িয়ে টোল দেয়। এসময় ভিক্ষুকরা যাত্রীদের কাছে থেকে ভিক্ষা ভিত্তি করে টাকা সংগ্রহ করেন। প্রতিদিন ২০-২৫ জন ভিক্ষুক তাদের জীবিকা নির্বাহ করার জন্য আসেন।এই সুযোগে দেবপাড়া ইউনিয়নের আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ফজলুল করিম একটি ভিক্ষুক সমিতি গঠন করে নিজে সভাপতি হন। তিন বছর ধরে প্রায় ৫০ জন ভিক্ষুকের কাছে থেকে টাকা আদায় করছেন তিনি। যেভিক্ষুক টাকা দিবে না সে টোলপ্লাজায় ভিক্ষা করতে পারবে না। ফলে অসহায় ভিক্ষুকরা বাধ্য হয়ে প্রতিদিন চাঁদা দিয়ে আসছেন। এনিয়ে এলাকায় তোলপাড়া হচ্ছে।

ভিক্ষুক মানিক মিয়া জানান, তারা ৫০ জন ভিক্ষুক তিন বছর যাবৎ চাঁদা দিয়ে আসছেন। প্রতি ভিক্ষুক প্রতিদিন ১০-২০ টাকা ও ভর্তি ফ্রি ৩শ টাকা দিয়েছেন। যারা চাঁদা দেয় না তারা এলাকায় ভিক্ষা ভিত্তি করতে পারবেন না।

দেবপাড়া ইউনিয়নের আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও ভিক্ষুক সমিতির সভাপতি ফজলুল করিম বলেন, আমরা সমিতি করেছি। কত টাকা জমা হয়েছে সেটা ক্যাশিয়ার বলতে পারবেন।

ভিক্ষুক সমিতির ক্যাশিয়ার হাবিবুর রহমান বলেন তিনি বলেন, আমি ভিক্ষুক সমিতির সভাপতি ফজলুর নির্দেশে টাকা জমা রাখছি। সমিতির সদস্য ছাড়া কেউ এখানে ভিক্ষা করতে পারবে না।

টোল প্লাজা পুলিশের ইনর্চাজ রেজা মাহমুদ বলেন, ভিক্ষুক সমিতির নামে টাকা তোলছেন ফজলু ও হাবিব। তাদেরকে বলেছি এখানে কোন টাকা তোলা যাবে না।